Realme 6 pro নাকি বোমা ফাটাবে, বাংলা রিভিউ। দাম কম কিন্তু ফিচারস বেশি!

হেই গাইস কি অবস্থা সবার?
লেখক ইমরান এর সাথে আমি আছি নীরব চলুন শুরু করি!

রিয়েলমি ৬ প্র নিউ এর নিউ মিড রেঞ্জ ২০ ফর্ম রিয়েল মি, কিছুদিন আগে রিয়েল মি ইন্ডিয়াতে লঞ্চ করে তাদের নতুন ডিভাইস রিয়েল মি ৬ প্র এবং ৬
শাওমি নোট সিরিজ যেমন সবার কাছে মোটামুটি বেশ জনপ্রিয় ঠিক তেমনি রিয়েলমির এই সিরিজ ও বেশ জনপ্রিয় এবং শাওমি এবং রিয়েলমি তাদের এই সিরিজে দিয়ে মূলত নিজেদের মধ্যে লড়াই চালিয়ে যেতে থাকে।

কিছুদিন আগের রিয়েল মি ৫ প্র এর সবারই নিশ্চয়ই মনে আছে? মনে থাকবেই না বা কেন কারণ সেই ডিভাইস দুটো বাংলাদেশের মার্কেটে এখনো বেশ জনপ্রিয়। মূলত আমাদের স্টুডিওতে রিয়েল মি ৭ এবং রিয়েল মি ৬ প্রো দুটি ডিভাইস ই এসে হাজির তবে রিয়েল মি ৬ প্রো এর রিভিউ টিই আগে নিয়ে আসলাম।

তো চলুন আমরা সবাই মিলে দেখি বাজেট হিসেবে ঠিক কি কি অফার করছে রিয়েলমি ৬ প্রো তার সাথে এর ভাল খারাপ নিয়ে প্যাচাল মারার চেষ্টা করবো পুরো পোস্ট জুড়ে আমি ইমরান ফ্রম ট্রিকবিডি।

রিয়েল মি ৫ প্র এর থেকে রিয়েলমি ৬ প্র এর অনেকটাই চেঞ্জ লক্ষ্য করেছি, ফ্রন্ট এবং রিয়ার ওই দিকেই ফাইভ প্রো থেকে নতুন ডিজাইন লক্ষ্য করবেন। রিয়েলমি ৬ প্র এর ফ্রন্টে পাবেন ৬.৬ ইঞ্চ আইপিএস এলসিডি প্যানেল যেটা কিনা এইচডি প্লাস একটি ডিসপ্লে।

রেডমি ৬ প্রো তে যুক্ত করা হয়েছে পাঞ্চাল কাটাউট উইথ ডুয়েল সেলফি ক্যামেরা রিয়ারে পাবেন কোয়াট ক্যামেরা সেটআপ যার পজিশন রিয়েল মি ৫ প্র এর পজিশনেই রয়েছে। তবে এটি বেশ প্রিমিয়াম তবে সেই ৫ প্রোর মতই এখানেও রিয়ার প্যানেল এবং সাইট ফ্রেমটি প্লাস্টিক বিল্ট, যার ফলে হালকা পাতলা ঘষা লাগলেই বারোটা বেজে যেতে পারে।

ডিভাইসটির রাইট সাইটে পাবেন পাওয়ার বাটন এবং পাওয়ার বাটন এর মধ্যে ইনস্টল করা হয়েছে ফিজিক্যাল ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর যেটি অনেক ফাস্ট এবং একুরেট ছিল।

লেফট সাইডে পাবেন ভলিউম অফ এবং ডাউন বাটন এবং সিম ও মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট থাকছে ডেডিকেটেড এইচডি কার্ড স্লট যার ফলে ফোনের মধ্যে দুইটি সিম এবং একটি মেমোরি কার্ড একসঙ্গে ব্যবহার করা যাবে।

নিচের দিকে পাবেন ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট প্রাইমারি মাইক্রোফোন এবং লাউড স্পিকার, সেই সঙ্গে উপরের দিকে রয়েছে সেকেন্ডারি নয়েজ ক্যান্সলেশন মাইক্রোফোন।

ডিভাইসটির সাইজে বেশ বড় এবং সাইট টাও মোটামুটি বেশ চওড়া যার কারণে হাতে নিয়ে বাট খারার মতই মনে হয়েছে আমার কাছে তবে আপনার কাছে নাও মনে হতে পারে। তবে এটি এক হাতে ব্যবহার করতে কিছুটা কষ্ট হবে গ্যারান্টি দিলাম।


ফোনটির মধ্যে ডিসপ্লে হিসেবে থাকছে ৬.৬ ইঞ্চের আইপিএস এলসিডি প্যানেল যার রেজুলেশন 1080 x 2400 pixels সেইসঙ্গে পিপিআই ডেনসিটি ৩৯৯ , ডিসপ্লের প্রটেকশনে পেয়ে যাবেন কর্নিং গরিল্লা গ্লাস ৫ এর প্রটেক্ট এবং ৯০ হার্স রিফ্রেশ রেট এর ডিসপ্লে, ডিসপ্লেটি খুব বেশি কালারফুল মনে হয়নি আমার কাছে এবং এর ব্রাইটনেস নিয়েও আমি তেমন একটা সন্তুষ্ট নয়, কারণ আউটডোরে মোটামুটি সানলাইট কন্ডিশনে ফুল ব্রাইটনেস দিয়েও কিছু দেখা যাচ্ছিল না।
তবে নাইটি হার্স রিফ্রেশ রেট হওয়ার কারণে ডিসপ্লেটির টাচ এক্সপিরিয়েন্স ছিল বেশ ভালো এবং এর টাচ রেসপন্স ও অনেক ভালো বলবো।
তাছাড়া তেমন একটা নেগেটিভিটি ডিসপ্লেতে লক্ষ্য করি নাই, গেম প্লে সহ মিডিয়া কনটেন্ট এক্সপেরিয়েন্স এই ডিসপ্লের সঙ্গে বেশ ভালই হবে, কারণ এর ফুল ভিউ ডিসপ্লের জন্য।


হার্ডওয়ার আই মিন চিপসেট বা পারফরম্যান্স হিসেবে থাকছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭২০জি এটি একটি অক্টাকোর প্রসেসর (8 nm) এবং এর ম্যাক্স সিপিইউ ক্লক স্পিড ২.৩ গিগাহার্টজ আর সেইসাথে জিপিইউ হিসাবে পাবেন Adreno 618

৬-৬৪ ৬-১২৮ এবং ৮-১২৮ এই তিনটি স্টোরেজ ভ্যালেন্টি এ পেয়ে যাবেন রিয়েলমি ৬ প্র, কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭২০ জি কোয়ালকম এর একদম লেটেস্ট একটি চিপসেট, তবে এটি ৭৩০জি এর থেকে বেটার চিপসেট নয় তাই আই থিং এখানে সেভেন থার্টি জি প্রসেসর ব্যবহার করাই উচিত ছিল তাদের।

ডেলি ইউস এ একদম লেগ ফ্রি ইউজেস এক্সপ্রেস পাবেন হেবি ইউজ এ ও কোন সমস্যা নেই পাবজি মিডিয়াম টু হাই গ্রাফিক্সে খেলেও তেমন কোন লেগ কিংবা ফ্রেম ড্রপ এর মত কোন সমস্যার লক্ষ্য করিনি। তাই আশাকরি এর পারফরম্যান্স নিয়ে আপনিও হতাশ হবেন না।


ফোনটি রান করছে out-of-the-box অ্যান্ড্রয়েড ১০ আর সেই সাথে রিয়েলমি ইউ আই ১.০ থাকছে। রিয়েলমি ইউ আই একদম নতুন একটি ইউ আই যার ফলে এটি তেমন একটি স্ট্যাবল নয়। টুকিটাকি বাগ দেখতে পারবেন ইউ আইটিতে তবে আশা করছি এগুলি খুব শিগগিরই রিয়েলমি সমাধান করে ফেলবে।

পাবেন সফটওয়্যার বেছ ফেস আনলক সিকিউরিটি সিস্টেম যা মোটামুটি অনেক ফাস্ট হলেও তেমন একটা সিকিউর না,

ফোনটিতে থাকছে ৪৩০০ মিলি এম্পিয়ারের ব্যাটারী, এবং সেইসাথে ৩০ ওয়ার্ড ফাস্ট চার্জিং এর সাপোর্ট আর বক্সে প্রোভাইড করা চার্জ আরটিও থার্টি ওয়ার্ডের তাই কষ্ট করে অন্য কোথাও থেকে চার্জার কিনতে হচ্ছে না‌।

আর এই চার্জারটি দিয়ে ফোনটি মোটামুটি ফুল চার্জ হতে সময় নেয় প্রায় ঘন্টা খানেক। যা আমার কাছে মোটামুটি বেশ ভালো ব্যাপার মনে হয়েছে। আর ব্যাটারি ব্যাকআপ এর কথা বলতে গেলে নরমাল ইউজে দুই দিনের মত ব্যাকআপ পাবেন, আর হেভি ইউজ করাই আমি ৮ ঘন্টার মত ব্যাকআপ পাচ্ছিলাম। তাই ব্যাটারি নিয়ে কোন প্রবলেম নাই রিয়েলমি ৬ প্রো তে।


তো চলুন কথা বলি ক্যামেরা সেগমেন্টে। ফোনটির রিয়ারে পাবেন কোয়াট ক্যামেরা সেটআপ যার প্রাইমারি শুটার টি ৬৪ মেগাপিক্সেলের, এবং এর অ্যাপাচার f ১.৮ উইথ ফেস ডিটেকশন auto-focus সেকেন্ডারিতে ১২ মেগাপিক্সেলের টেলি ফটো লেন্স যেটি টুয়েল অপটিক্যাল জুম প্রোভাইড করে। আর থার্ড ক্যামেরা টি ৮ মেগা পিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড লেন্স এবং ফোর্ট ক্যামেরাটি ২ মেগা পিক্সেলের মাইক্রো লেন্স।

আর রিয়ার ক্যামেরা দিয়ে ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন সর্বোচ্চ 4k 60fps এ এবং ভিডিও কোয়ালিটি মোটামুটি যথেষ্ট ভাল ছিল।


ফ্রন্টে পাবেন ডুয়েল ক্যামেরা সেটআপ যার প্রাইমারি শুটার টি ১৬ মেগাপিক্সেলের রেগুলার সেন্সর এবং সেকেন্ডারি টি ৮ মেগাপিক্সেল এর আল্ট্রা ওয়াইড লেন্স। বাজেট বিবেচনাই ফোনটির ক্যামেরা বেশ ভালই ছিল , তবে হ্যাঁ ফ্রন্ট ক্যামেরাটা সফটওয়্যার আপডেট এর মাধ্যমে আরেকটু ইনপ্রুফ করার দরকার।

রিয়েলমি ৬ প্র এর বেছ ভেরিয়েন্ট এর প্রাইস ১৬,৯৯০ রুপী যা বাংলাদেশী টাকায় ১৮,৫০০ থেকে ১৯ হাজার টাকার মধ্যে হওয়ার কথা। তবে আপাতত প্রোডাক্টটা কম থাকায় এবং বিশ্বের রিসেন্ট কিছু ইস্যুর জন্য এর দাম কিছুটা বেশি তবে তা খুব শীঘ্রই কমে যাবে।

পোস্টটি স্পন্সর করেছে স্মার্ট শপ, রিয়েলমি ৬ প্র সহ যেকোনো ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন গেজেট এবং এক্সোসরিজ তাদের কাছে পেয়ে যাবেন বাসাতে বসেই রিজনাবল প্রাইসে , তাই কিছু অর্ডার করতে চাইলে যোগাযোগ করুন ০১৯০৩৩৯৪১৯৮

পোস্টটি ভাল লাগলে একটি লাইক দিয়ে দেয়ার অনুরোধ রইল, শীঘ্রই দেখা হবে নেক্সট কোন রিভিউ এর মাধ্যমে, সে পর্যন্ত ভাল থাকুন এবং বাসায় থাকুন, আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply