সেরা ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ সলুশনসঃ Best Free Cloud Storage Solutions

ড্রাইভ ক্রাশ করার ভয় কিংবা র‍্যানসামওয়্যারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা , নিজের পিসির মুল্যবান ডাটা তাই ব্যাকআপ করে রাখতে চান অনেকেই। একটি বড় অংশ রয়েছেন যারা ট্রাভেল ও করেন তাই Remotely ফাইল এক্সেস করার ও দরকার হয়। সব মিলিয়ে অনেকেই আছেন যারা ভালো ক্লাউড স্টোরেজ ব্যাকআপ সলুশন খুজেন , কিন্ত আমাদের দেশে টাকা দিয়ে ফাইল ব্যাকআপ রাখার মত সামর্থ্য ও মানসিকতা ও কম মানুষেরই আছে।। ফ্রি সার্ভিসের ক্ষেত্রে সবথেকে বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় স্টোরেজ এর স্বল্পতা। আজ আলোচনা হবে কিছু ফ্রি স্টোরেজ সলুশন নিয়ে। অবশ্যই আমাদের প্রাধান্য থাকবে বেশি স্টোরেজ।

Mega(মেগা)

উল্লেখযোগ্য ফিচার্সঃ

১৫ জিবির ফ্রি স্টোরেজঃ সাথে ডেক্সটপ এপ্লিকেশন ইন্সটল করলে ২০ জিবি বোনাস স্টোরেজ, ৪০ জিবি ট্রান্সফার বোনাস, মোবাইল এপ্লিকেশন ইন্সটল করলে আরো ১৫ জিবি বোনাস স্টোরেজ ৩০ জিবি ট্রান্সফার বোনাস, একাউন্ট খোলার জন্য ৩৫ জিবি বোনাস স্টোরেজ, এবং প্রত্যেক ফ্রেন্ডকে ইনভাইট করলে ১০ জিবি করে বোনাস (বোনাসগুলো দ্রুত ব্যবহার করতে হবে না হলে এক্সপায়ার হয়ে যাবে।(ম্যাক্সিমাম ফ্রি ফাইল সাইজ ৪ জিবি)
এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন।
ফাইল শেয়ার করার সুবিধা।
ভিডিও প্লে করা ও ছবি প্রিভিউ করার সুবিধা।
মোবাইল(android,IOS) ও ডেস্কটপ এপ্লিকেশন যেগুলো ব্যবহার করে আপনি যেকোনো সময় আপলোড ডাউনলোড করতে পারবেন একাউন্ট সেটিংস সহ অন্যন্য অপশন থাকবে।
স্পিড লিমিটেশনের অসুবিধা রয়েছে।

Deego(ডিগো)

১০০ জিবি ফ্রি স্টোরেজঃ জ্বি, ১০০ জিবি ফ্রিতে স্টোরেজ পাওয়া যাবে। এটিই মুলত এই সার্ভিসটির মুল আকর্ষণ । (ম্যাক্স ফাইল সাইজ আনলিমিটেড)
যাদের একাউন্ট নেই তাদের সাথেও ফাইল শেয়ারিং এর সুবিধা ।
স্ট্রিমিং এর ব্যবস্থা রয়েছে।
ব্রাউজার এর বদলে ,সবসময়ই এপ্লিকেশন ব্যবহার করতে হয়, desktop,android, IOS, Amazon Kindle এর এপ্লিকেশন রয়েছে।

Mediafire(মিডিয়াফায়ার)

***বাংলাদেশে কানেকশনে ইস্যু থাকতে পারে, সেক্ষেত্রে ভিপিএন ব্যবহার করতে হবে না হয় অন্য কোনো ব্যাকআপ সলুশন ব্যবহার করতে হবে***

মিডিয়াফায়ার এ ১০ জিবি প্রথমেই ফ্রি স্টোরেজ পাবেন।। ফ্রেন্ডদের ইনভাইট করে, মোবাইল এপ্লিকেশন ইন্সটল দিয়ে, টুইটার,ফেসবুক লিংক করে, লিংক শেয়ার করে আরো ৪০ জিবি পর্যন্ত তা বাড়িয়ে নেওয়া সম্ভব।
স্পিড যথেষ্ট ভালো । ২০ জিবি পর্যন্ত বড় ফাইল আপলোড করা যাবে।
সহজেই ফাইল ,ফোল্ডার শেয়ার করা যায় , URL দিয়ে ইম্পোর্ট করা যায়।
পাবলিক ফোল্ডার তৈরীর সুবিধা যেটি দিয়ে অন্যরাও আপনার একাউন্টে ফাইল আপলোড করতে পারবে ।
Android,IOS এপ্লিকেশন রয়েছে।
যথেষ্ট ফ্লেক্সিবল ইউজার ইন্টারফেস, ড্রাগ এন্ড ড্রপ সুবিধা।

Blomp(ব্লম্প)

20 জিবি ফ্রি স্টোরেজ। ফ্রেন্ডদের রেফার করার মাধ্যমে তা বাড়ানো যাবে ২০০ জিবি পর্যন্ত।
ফাইল সাইজের লিমিট নেই আপলোড/ডাউনলোডে ।
Windows,Linux,Mac,Android,IOS এপ্লিকেশন রয়েছে।
তবে ফাইল শেয়ারিং এর সুবিধা নেই এবং ফাইল প্রিভিউ এর ও সুবিধা নেই, অর্থাৎ আপলোড কৃত ফাইল দেখতে হলে প্রতিবার আপনাকে ডাউনলোড করতে হবে।

Google Drive(গুগল ড্রাইভ)

গুগল ড্রাইভ বলতে গেলে সবথেকে সুপরিচিত এবং বেশি ব্যবহ্বত ক্লাউড স্টোরেজ। এন্ড্রয়েড স্মার্টফোন ইউজারদের গুগল একাউন্ট সবারই থাকে এন্ড সবাইই কম বেশি ব্যবহার করে থাকেন

১৫ জিবি স্টোরেজঃতবে এই ১৫ জিবি জিমেইল সহ অন্যন্য গুগল সার্ভিস সহকারেই ।
লিংক শেয়ারের সুবিধা, একই সাথে একাধিক ব্যক্তির সাথে শেয়ার করা যায় ছবি/ফাইল/ভিডিও
ভিডিও/ছবি প্রিভিউ/স্ট্রিম করার ব্যবস্থা রয়েছে। বিভিন্ন প্লাগইন ও রয়েছে।
যেহেতু এটির জন্য শুধু একটি মেইল লাগবে,যে কেও চাইলে ইচ্ছামত একাধিক মেইল খুলে ব্যাকআপ করতে পারবেন ফাইল। প্রতি ক্ষেত্রেই ১৫ জিবি করে স্টোরেজ পেয়ে যাবেন।
ডেক্সটপের জন্য backup and sync এপ্লিকেশন রয়েছে যেটি দিয়ে ব্যাকআপ করা যাবে ডেস্কটপের সব রকমের ফাইল।। রয়েছে মোবাইল এপ্লিকেশন।
ভাইরাস স্ক্যান এর সিস্টেম রয়েছে ছোট ফাইলের ক্ষেত্রে।

Yandex Disk:

 

১০ জিবি ফ্রি স্টোরেজ যেটি আরো ১০ জিবি বিভিন্ন রেফারেল ও কন্টেস্ট এর মাধ্যমে বাড়িয়ে নেওয়া যাবে। (ফ্রি ম্যাক্স ফাইল সাইজ ৫০ জিবি পর্যন্ত)
লিংক শেয়ারিং, ভাইরাস স্ক্যান, মাইক্রোসফট অফিস এর মত অন্যন্য এপ্লিকেশন এর সাথে ইন্টিগ্রেশন এর ফিচার।
ফাইল প্রিভিউ/স্ট্রিম এর ব্যবস্থা।
ডেস্কটপ,এন্ড্রয়েড, IOS এপ্লিকেশন।

Koofr(কুফর)

এটি আসলে স্টোরেজের থেকে বেশি কিছু। এখানে সবথেকে বড় সুবিধা হচ্ছে এখানে অন্যন্য ক্লাউড স্টোরেজ ও আপনি কানেক্ট করতে পারবেন যেমনঃ google drive, dropbox,onedrive
ফাইল সাইজ লিমিট নেই, ফাইল টাইপ লিমিট নেই,
২ স্টেপ ভেরিফিকেশন ও সিকিউর কানেকশন ।
ক্রোম,ফায়ারফক্স এক্সটেনশন দ্বারা সরাসরি ড্রাইভে ফাইল সেভ করার সুবিধা।
ডেস্কটপ,এন্ড্রয়েড, IOS এপ্লিকেশন।

Pcloud(পিক্লাউড)

১০ জিবি স্টোরেজ, বাড়িয়ে সহজেই আরো ১০ জিবি  বাড়িয়ে নেওয়া যাবে। ম্যাক্স ফাইল সাইজ আনলিমিটেড ।
সুন্দর ইউজার ইন্টারফেস, ফাইল শেয়ারিং,
ফেসবুক ও ইন্সটাগ্রাম  এর ছবি ব্যাকআপের সুবিধা। লিংক শেয়ার এর মাধ্যমে অন্যকেও আপলোড এর সুযোগ করে দেওয়ার সুবিধা রয়েছে।
মোবাইল,ডেস্কটপ এপ্লিকেশন রয়েছে।
বিল্ট ইন ভিডিও/অডিও প্লেয়ার।

বটমলাইন:

দেশের ইউজারদের গতি প্রকৃতি ও উদ্দেশ্য বিবেচনায় সবথেকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে ফ্রি স্টোরেজের পরিমাণের উপর। সিকিউরিটি ও অন্যন্য আকর্ষণীয় ফিচার্স এর প্রতি প্রাধান্য কম দেওয়া হয়েছে ।এজন্যই ড্রপবক্স,sync,box,amazon,onedrive সহ বেশ কিছু reliable ও জনপ্রিয় ক্লাউড স্টোরেজ সল্যুশন বাদ পড়েছে আমাদের পোস্ট থেকে ।।( তবে তাই বলে এখানকার কোনোটিই আপনার জন্য unsafe হবে না, ফিচার্স কমবেশি থাকলেও ডেটা চুরি,সেল করা ,নষ্ট,ড্যামেজ করার মত ঘটনা নেই এগুলোর মধ্যে কারো।) উপরে উল্লেখিত সবগুলো স্টোরেজেরই পেইড ভার্সন রয়েছে(মাসিক বা বার্ষিক)।। যদি ফ্রি ভার্সন ব্যবহার করে সন্তুষ্ট হন এবং প্রিমিয়াম ফিচার গুলো উপভোগ করতে চান সেক্ষেত্রে সহজেই ইচ্ছামত,সামর্থ অনুযায়ী প্যাকেজ নিতে পারবেন।

Premium Video editing apps free download fromapktips

Leave a Reply