২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে সকল সরকারী ও বেসরকারী মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন।

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে সকল সরকারী ও বেসরকারী মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি গত ১৯ আগস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুসারে এবারও ভর্তির আবেদনের যোগ্যতা এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে মোট জিপিএ-৯ নির্ধারণ করা হয়েছে। সম্প্রতি কয়েকটি জেলায় নতুন সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপনের
সরকারের সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে এমবিবিএস ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি সংক্রান্ত অনলাইন সফটওয়্যার
প্রস্তুতকরণের সুবিধার্থে ছাত্র- ছাত্রীদের অনলাইন ভর্তির আবেদন গ্রহণ আগামী ২৭/০৮/২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
তারিখ দুপুর ১২:০০ ঘটিকা হতে শুরু হবে। অনলাইন আবেদনের শেষ তারিখ ১৮/০৯/২০১৯ খ্রিস্টাব্দ তারিখ রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত অপরিবর্তিত থাকবে। এবারও আবেদন ফি এক হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে যা শুধুমাত্র টেলিটক প্রিপেইড সিম এর মাধ্যমে জমা নেওয়া হবে। এবার মেডিকেল কলেজসমূহের ভর্তি পরীক্ষা ০৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

আবেদনের যোগ্যতা

★ ২০১৬ বা ২০১৭ সালের এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় ও ২০১৮ বা ২০১৯ সালের এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় পদার্থ, রসায়ন ও জীববিদ্যাসহ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। ২০১৬ সালের পূর্বে এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র ছাত্রীরা আবেদন করতে পারবেনা।

★ সকল দেশি ও বিদেশি শিক্ষা কার্যক্রমে এসএসসি / সমমান ও এইচএসসি / সমমান দুটো পরীক্ষা মিলিয়ে কমপক্ষে জিপিএ ৯ থাকলে তাঁরা পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবে।

★ উপজাতি ও পার্বত্য জেলার অ-উপজাতি শিক্ষার্থী যাঁদের জিপিএ ৮ আছে তাঁরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। তবে কোনোটিতে জিপিএ-৩ দশমিক ৫০ এর নিচে থাকলে সেই শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পারবেনা।

★ সকলের জন্য অবশ্যই এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় জীববিজ্ঞানে জিপিএ ন্যূনতম ৩ দশমিক ৫ থাকতে হবে।

মানবন্টন

* ১০০ (একশত) নম্বরের ১০০টি এমসিকিউ প্রশ্নের ১ (এক) ঘণ্টার লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। লিখিত পরীক্ষায় বিষয়ভিত্তিক নম্বরঃ- জীববিদ্যা-৩০; রসায়নবিদ্যা-২৫; পদার্থবিদ্যা-২০; ইংরেজি-১৫; সাধারণ জ্ঞানঃ বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি- ৬, আন্তর্জাতিক-৪।

* ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস/বিডিএস ভর্তি পরীক্ষায় পূর্ববর্তী বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ
পরীক্ষার্থীদের সর্বমোট (Aggregated) নম্বর (এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ১৫ গুণ +এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ২৫ গুণ+ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর) থেকে ০৫ নম্বর কেটে এবং পূর্ববর্তী বছরের
সরকারী মেডিকেল বা ডেন্টাল কলেজ/ইউনিট-এ ভর্তিকৃত
ছাত্রছাত্রীদের ক্ষেত্রে মোট নম্বর থেকে ৭.৫ (সাত দশমিক পাঁচ) নম্বর কেটে মেধা তালিকা তৈরি করা
যাবে। লিখিত পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তর প্রদানের জন্য ০.২৫ নম্বর কেটে নেওয়া হবে।

* লিখিত পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ন্যূনতম ৪০ নম্বর পেতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের কম নম্বর প্রাপ্তরা অকৃতকার্য বলে গণ্য হবে। শুধুমাত্র কৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

* এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত ২০০ নম্বর হিসেবে নির্ধারণ করে নিম্নলিখিতভাবে মূল্যায়ন
করা হবেঃ

ক) এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ১৫ গুণ= ৭৫ নম্বর (সর্বোচ্চ)

খ) এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ২৫ গুণ= ১২৫ নম্বর (সর্বোচ্চ)

* উল্লেখিত পদ্ধতিতে এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের যোগফলের ভিত্তিতে মেধা তালিকা প্রণয়ন করা হবে।

ভর্তি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তারিখসমূহ

* অনলাইনে আবেদন শুরুর তারিখঃ ২৭ আগস্ট (দুপুর ১২:০০ মিঃ)

* অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখঃ ১৭ সেপ্টেম্বর (রাত ১১:৫৯ মিঃ)

* প্রবেশপত্র ডাউনলোড প্রক্রিয়াঃ ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ২৯

সেপ্টেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত চলবে।

* ভর্তি পরীক্ষার তারিখঃ ০৪ অক্টোবর সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত।

পরীক্ষা ফিসঃ ১০০০/- (এক হাজার) টাকা

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজসমূহে ভর্তির আবেদন, প্রবেশ পত্র ডাউনলোড ও ফলাফল সংক্রান্ত ওয়েবসাইটের ঠিকানা

Leave a Reply