মাত্র ১২ হাজার ৯৯০ টাকায় অফিশিয়ালি realme 5i এ যেন এক নতুন অধ্যায়!!

হাই গাইজ ইমরান হেয়ার,
কেমন আছেন জানতে চাইলাম না কারন আমারটিপ্সতে যারা ভিজিট করেন তারা অবশ্যই সব সময় ভালোর দলেই থাকেন!

তো প্রথমেই রিয়েলমি কে ধন্যবাদ তাদের অফিসিয়াল কার্যক্রম বাংলাদেশের শুরু করার জন্য, বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাদের দেশেই তাদের প্রোডাক্ট গুলি অ্যাসেম্বল করার জন্য!

আমরা আশা করছি সুন্দর প্রতিযোগিতার মাধ্যমে, আমাদের দেশে স্মার্টফোন ইন্ডাস্ট্রিতে তারা বেশ ভালো একটা অবদান রাখবে। আমারটিপ্সর পক্ষ থেকে রিয়েলমি কে অনেক অনেক শুভকামনা রইলো!

বাংলাদেশে এই প্রথম রিয়েল মির অফিশিয়াল ফোন realme 5i যদিও এন্ট্রি লেভেলের স্মার্টফোন নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে তারা, এবং আমাদের প্রত্যাশা খুব দ্রুতই তারা ফ্লাগশিপ লেভেলের ফোন ও বাজারে আনবে!

তো আজকে আমরা এই রিয়েলমি ফাইভ আই ফোনের মধ্যে কি কি আছে তা খুঁজে বের করার চেষ্টা করব, তো চলুন শুরু করি!

আজকাল প্রায় সব স্মার্ট ফোন নির্মাতাদের মধ্যে চলছে কম্পিটিশন প্রতিযোগিতা চলছে কে কত কম খরচে সবথেকে ভালো মানের স্মার্টফোন টা দিতে পারে। আর তাতে আলটিমেটলি লাভবান হচ্ছি আমরাই।

এই ধরুন রিয়েল মি 5i এর কথাই বলি এত কম বাজেটে এরকম প্রিমিয়াম বিল কোয়ালিটির স্মার্টফোন কয়েক বছর আগে চিন্তাই করা যেত না!


প্রথমেই লুক এন্ড ফিল নিয়ে কথা বলি।
এর আগাগোড়া প্লাস্টিক এর কিন্তু তারপরও রয়েছে প্রিমিয়াম লুক বেশ বড়ো সড়ো তাই এক হাত এ অপারেট করতে স্ট্রাগল করতে হতে পারে আপনাকে!
বড়োসড়ো ফোন আর বেশি ক্যাপাসিটর ব্যাটারি ব্যবহার করার কারণে এর ওজনও ২০০ গ্রামের কাছাকাছি।


রয়েছে ৬.৫ ইঞ্চি ইউজ আইপিএস ডিসপ্লে সেই সাথে রয়েছে টু ড্রপ নচ, আইপিএস ডিসপ্লে হলেও কনটেন্ট গুলো ছিল খুব সার্ফ কালারফুল আর প্রাণবন্ত, ডিসপ্লেতে গরিলা গ্লাস প্রটেকশন আছে তো সব মিলিয়ে বেশ ভালো একটা কম্বিনেশন!

স্নাপড্রাগণ ৬৬৫ চিপসেট ইউজ করা হয়েছে এতে সেই সাথে octa-core সিপিইউ আর সেইসাথে এক্সিনোস ৬১০ জিপিহউ!

র্যাম ও রমের রয়েছে দুইটি অপশন ৩ জিবি আর ৩২ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ অথবা ৪ জিবি র্যাম আর ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ,

যদি বাজেটের কথা মাথায় রেখে হিসাব করি তাহলে এই কম্বিনেশন অনেক দাবি দাবি ব্র্যান্ডেড চাইতেও বেশ এগিয়ে থাকবে!


Android ৯ PIe এর সাথে ব্যবহার করা হয়েছে কালার ওএস ৬ যদিও কালার ওএস ৬ আবার খুব একটা পছন্দ না তবে আশা করব খুব শীঘ্রই এতে রিয়েলমি ইউ আই আপডেট পেয়ে যাব।


সিকিউরিটি হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে rear-mounted ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর আমার পরীক্ষা-নিরীক্ষায় যেটা বুঝা গেল সেটি হচ্ছে এই বাজেটে সেটা খুবই ইম্প্রেসিভ সিকিউরিটি হিসেবে সেইসাথে ফেস আনলক ফিচারস পার্সোনালি এটা আমি পছন্দ করি না কারণ আমার কাছে সিকিউর মনে হয়।

তো চলুন এবার দেখে আসি ক্যামেরা পারফরম্যান্স,
এর ক্যামেরা পারফরম্যান্স নিয়ে আমি সত্যিই মুগ্ধ হয়েছি ফোনটির অন্যতম প্রধান আকর্ষণ এর দারুন ক্যামেরা সত্যি কথা বলতে কি এর ক্যামেরা নিয়ে আলাদা একটি পোস্ট করে দেয়া যায়, সুতরাং খুব বেশি ডিটেইলস এ গেলাম না!

পিছনে ব্যবহার করা হয়েছে ৩ টি ক্যামেরা সেটআপ যার একটি ১২ মেগাপিক্সেল এর হোয়াইট ক্যামেরা সেকেন্ডারি ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল এর ultrawide sensor পাশাপাশি আরও রয়েছে একটি ডেডিকেটেড মাইক্রো ক্যামেরা আর একটি ডিপ সেন্সর যেগুলো ২ মেগাপিক্সেলের এর!

আর ছবির কোয়ালিটি দাম বিবেচনা করলে দারুণ মনে হয়েছে আমার কাছে যেকোনো লাইটিং কন্ডিশনে থেকে তোলা ছবি দেখে আপনি স্যাটিস্ফাইড হবেন আমি নিশ্চিত কালার গুলো বেশ পানছি, dynamic ratio একটু ঘাটতি লক্ষ্য করা গেলেও সবকিছু মিলিয়ে ছবির কোয়ালিটি ছিল প্রিমিয়াম লেভেলের,
তবে একটা জায়গায় আমি একটু হতাশই সেটি হচ্ছে এর প্রোটেক্ট মোট এস ডিটেকশন মোটেও ইম্প্রেসিভ ছিলনা ব্যাকগ্রাউন্ড ব্লার করতে গিয়ে এটা কখনো কখনো আপনাকেই ব্লার করে দিবে!

ম্যাক্রো ক্যামেরাই বেশ ভাল মানের কিছু ছবি পেয়েছি কিন্তু মাত্র ২ মেগাপিক্সেলের এর হওয়াই ছবির রেজুলেশন খুব একটা হাই কোয়ালিটির না,

তো রিয়েলমি 5i দিয়ে তোলা কিছু ছবি।



সামনে ব্যবহার করা হয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা ছবির মান মোটামুটি বলবো আমি এক্সপোজারএ একটু দুর্বলতা রয়েছে আর লো লাইটে দুর্বল হয়ে যায়!

তো যারা জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলছি রিয়েলমি কিন্তু অপ এর খালাতো ভাই আর ওপর একটা বদনাম রয়েছে এর আর্টিফিশিয়াল বিউটিফিকেশন এর জন্য সুতরাং আমার পরামর্শ থাকবে এর ক্যামেরা ব্যবহার করার সময় আর্টিফিশিয়াল বিউটিফিকেশন অফ করে ছবি তুলুন।

তো সেলফি ক্যামেরা দিয়ে কিছু ছবি নিচে দেয়া হল।


এর ভিডিও ক্যাপাসিটি তে রয়েছে, চমকের পর চমক আমি কিন্তু রীতিমত টাশকি খেয়ে গেছি কারণ এটি দিয়ে আপনি 4k ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন, শুধু তাই নয় আপনি ওয়াইড এঙ্গেল এ ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন।
আর ভিডিও কোয়ালিটি সম্পর্কে আপনাকে একটু আইডিয়া দেই এটা দিয়ে ইউটিউবিং অথবা ব্লক ভিডিও করা যাবে অনায়াসে।

5000mh ইউজ ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে এতে নর্মাল ইউজে প্রায় ১০ ঘণ্টার মত ব্যাকআপ পাবেন যেটা কিন্তু খুব ইম্প্রেসিভ আর এর প্যাকেটে দেয়া হয়েছে ১০ ওয়ার্ডের ফাস্ট চার্জার সেটা দিয়ে ব্যাটারি ফুল চার্জ হতে সময় লাগবে মাত্র দুই ঘন্টা!


এবার আসি এর গেমিং সেকশনে!
তো আপনারা নিশ্চয় জানেন এটি একটি এন্ট্রি লেভেলের ফোন খুব বেশি দাম নয় কিন্তু যেটুকু এক্সপেক্টেশন ছিল আমার তার থেকে অনেক বেশি কিছু পেয়েছি, এর গেমিং পারফরমেন্স ছিলো বেশ ইম্প্রেসিভ।

আমরা ইসমত গ্রাফিক্স সেটিংয়ে পাবজি খেলছি হাই -fame এ কোন Fame drop লক্ষ্য করিনি আর পাশাপাশি আমার অলটাইম ফেভারিট asphalt 9 চলেছে পুরা মাখন এর মত তাছাড়া এর ইউজ বড় ডিসপ্লে হওয়াই বেশ উপভোগ্য ছিল এর গেম প্লে। প্রায় ঘন্টাখানেক গেম খেলার পর খেয়াল করলাম ডিভাইসটি কিছুটা হিট হয়েছে তবে সেটা স্বাভাবিকের তুলনায় খুব একটা বেশি নাই।

ওভারঅল এর গেমিং পারফরমেন্স নিয়ে আমি বেশ সন্তুষ্ট বিশেষ করে এর বাজেটের কথা যদি আপনি মাথায় রাখেন, যেটা আপনাকে বেশ খুশি করবে।

ওভারেল পারফরম্যান্স ছিল খুবই চমৎকার আমাদের টেষ্টিং এ উল্লেখ করার মত তেমন লেগ বা হিটিং ইসু পায় নাই। মাল্টিটাস্কিং সহ মোটামুটি সব ধরনের অ্যাপ এটা হ্যান্ডেল করেছে খুব ভালোভাবেই,

অডিও আউটপুট নিয়ে তেমন একটা কমপ্লেন নাই যেমনটা সাধারণভাবে হয়ে থাকে রিয়েলমি ডিভাইস এ এটাও ঠিক তেমন কল কোয়ালিটি খুবই ভালো তেমন কোনো নেটওয়ার্ক ইসু খেয়াল করিনি আর ওয়াইফাই কানেকটিভিটিতে ও বেশ স্ট্যাবল কানেকশন পেয়েছি।
পৃথিবীর কোন কিছুই পারফেক্ট নয় আর এটাতো সামান্য স্মার্টফোন। তো এবার আপনাদেরকে জানিয়ে দিতে চাই এই স্মার্টফোনটি কিছু নেগেটিভ দিক।

স্মার্টফোনে কোন নোটিফিকেশন লাইট নেই , এটা কিন্তু একটি দরকারি ফিচারস খুবই কষ্ট পেলাম। 😢[
প্লাস্টিক বডি তাই দেখতে অনেকটা কম দামি মনে হতে পারে অনেকের কাছে আর তাছাড়া ব্যাক কভার ইউজ না করলে খুব দ্রুত দাগ পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, আর ফোনটা একটু বেশিই বড়োসড়ো তাই এক হাতে ব্যবহার করাটা কিন্তু অনেকটা অসম্ভব, সুতরাং এটা কেনার আগে অবশ্যই এই ব্যাপার গুলো আপনার মাথায় রাখতে হবে।

তাছাড়া ফোনটা কিন্তু বেশ মোটাসোটা আপনারা যারা একটু স্লিম বডির স্মার্টফোন পছন্দ করেন তাদের কাছে এটা পছন্দ নাও হতে পারে। আউটডোরে ডিসপ্লের পারফরম্যান্স খুব একটা ইম্প্রেসিভ নয় এটাকে আরো ইম্প্রুভ করা দরকার বলে আমার মনে হয়।

ও আরেকটি কথা ফোনের ডিসপ্লে কিন্তু ফুল এইচডি নয়, সুতরাং ইউটিউবে 720p উপরে ভিডিও কনটেন্ট কিন্তু আপনি দেখতে পারবেন না, আরেকটি বিষয় হচ্ছে এর ডিসপ্লের পিপিআই আমার কাছে একটু কম মনে হয়েছে।
ইপিআই মানে হচ্ছে পিক্সেল এর ঘনত্ব এটা আরেকটু বাড়ানো গেলে আমার মনে হয় বেশ ভালো হতো।

মন খারাপ করে লাভ নেই কিছু তো অসুবিধা নিশ্চয়ই থাকবে এটা আমরা লাখ টাকার ফোনেও দেখেছি সুতরাং এগুলো নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে আপনি একটা ব্যাপার মাথায় রাখতে পারেন সেটা হচ্ছে এই বাজেটে এটা অন্যতম সেরা পছন্দ হতে পারে আপনার।


তো এই ছিল রিয়েলমি ৫ আই এর সম্পূর্ণ রিভিউ, ভালো লাগলে লাইক দিয়ে উৎসাহিত করবেন কমেন্ট বক্সে নিশ্চয়ই জানাবেন নেক্সট কোন ফোনের রিভিউ আপনি দেখতে চাচ্ছেন।

আর গেজেট বিডিতে পাওয়া যাচ্ছে, LG V30+ ৪-১২৮ জিবি মাত্র ৮,৯৯০ টাকায় আনঅফিসিয়ালি,
অর্ডার করার জন্য কল করুন: ০১৮৬৫৭৩৩২৪০

তো আজকের মত চলে যাচ্ছি দেখা হচ্ছে আরো একটি নতুন পোস্ট এ সবার সাথে ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন নিজের খেয়াল রেখো আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply