জেনারেশন আমি মুভি রিভিউ + লিংক || বাবা-মা এবং শিক্ষার্থী সকলের জন্য শিক্ষনীয় মুভি ||

মুভি: জেনারেশন আমি

বছর: ২০১৮

আইএমডিবি: ৭.৬/১০

জনরা: ড্রামা

সাধারণত বাংলা মুভি খুব বেশি একটা দেখা হয়না। তবে এই মুভিটা একেবারে ব্যতিক্রম। কলকাতার মুভি বলেন নাক সিঁটকানোর কোন দরকার নেই। কলকাতার টিপিকাল মুভির মতো এটা না। এই মুভি আমাদের সকলের জন্য একটি শিক্ষা তার সাথে আমাদের বাবা মার জন্যও।

মুভিটি শুরু হওয়ার প্রথম পাঁচ মিনিটের মধ্যেই আপনাকে অ্যাট্রেক্টিভ করে দিবে। আপনি যদি ড্রামা লাভার হয়ে থাকেন তাহলে এই মুভি জীবনেও আপনাকে নিরাশ করবে না। মুভির প্রতিটা মুহূর্ত আমেজের মধ্যে কাটবে।

ছবিতে দুই চাচাতো ভাই বোনের চরিত্র বেশি প্রাধান্য পেয়েছে। দুর্গা বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ হওয়া মেয়ে যে দিল্লিতে বসবাস করে এবং একজন ডিপ্রেশনের রোগী।

সেইসাথে রগচটা এবং জেদি স্বভাবের। এদিকে অপুর স্বপ্ন গান গাওয়া তবে বাবা-মায়ের অতিরিক্ত শাসন দুশ্চিন্তা তাকে কাহিল করে দিয়েছে। এমনকি তার স্বপ্নের কথা

অপু তার বাবা-মাকে বলতে ভয় পায় কারণ সে জানে তার বাবা-মা তার স্বপ্নকে কখনো সত্যি হতে দিবে না।

সারাদিন পড়াশোনা টিউশনের চাপে তার স্বপ্ন প্রায় চাপা পড়ে গিয়েছে।

এই সিনেমাটা আমাদের সকলের জন্য একটা শিক্ষা।

পরিচালক খুব সুন্দর ভাবে সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন মুভি প্রতিটা মুহূর্ত মনমুগ্ধকর।

বর্তমান বাবা মায়েরা যেমন সন্তানকে স্বাধীনতা দেয় না।

জেলখানার মতো মুখ গুঁজে সব সময় পড়াশোনা করতে হয় টিউশনি করতে হয় নিজস্ব কোন স্বাধীনতা থাকে না।

থাকেনা খেলাধুলার সুযোগ সুবিধা। বাবা-মার জোর জবরদস্তি নিজের স্বপ্নের কথাও বর্তমান ছেলেমেয়েরা মুখ খুলে শেয়ার করতে পারে না।

এই সকল কিছুর বিরুদ্ধে এই সিনেমাতে বলা হয়েছে।

বাস্তবের সাথে এই সিনেমায় দেখানো সবকিছুই মিল পাবেন সেটা আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি। 

সিনেমাটিতে খুব সাবলীলভাবে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এবং আমাদের বাবা মায়ের অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে। মুভিটা বাবা-মা সহ সকলের জন্য মাস্ট ওয়াচ।

আপনি চাইলে যেকোন বয়সের আত্মীয়-স্বজন বা ভাই বোনদের সাথে এই মুভি দেখতে পারবেন এমনকি আপনি চাইলে আপনার বাবা মার সাথে দেখতে পারেন যদি তাদের ইনডাইরেক্টলি কিছু বোঝাতে চান। 😛

অনেকদিন পর এত ভালো একটা মুভি দেখেছি। পরিবার নিয়ে দেখার জন্যে একেবারে পারফেক্ট মুভি। 

অ্যাক্টিং নিয়ে কথা বললে প্রতিটা ক্যারেক্টর খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।  কারো অভিনয় কোন কমতি ছিল না। সবাই তাদের ন্যাচারাল অভিনয় করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। মুভিটি ইমোশন এবং হাসি দুটিতেই ভরপুর।

জীবনে যে কয়েকটা কলকাতার মুভি দেখেছি তার মধ্যে এই মুভি আমার সবচাইতে ভালো লেগেছে।

আপনিও চাইলে দেখে নিতে পারেন নিচের দেওয়া লিঙ্ক থেকে।

সর্বপ্রথম আপনাকে নিচের দেওয়া লিংকে ক্লিক করতে হবে। তারপর একটু নিচে গেলেই দেখতে পাবেন “Let’s Start” বাটন রয়েছে। সেটাতে ক্লিক করলে কিছু সময় অপেক্ষা করার পর গুগোল ড্রাইভ লিনক চলে আসবে। 

size: 700mb

লিংক:

Click here

স্ক্রিনশট:



আশা করি পোস্টটি আপনাদের অনেক ভাল লেগেছে ধন্যবাদ।

Leave a Reply