পরিচিত হোন বর্তমানে জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম গুলোর সাথে

আপনি কি আপনার একটি ওয়েবসাইট বিল্ড করার কথা ভাবছেন? কিন্তু কোন কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ইউজ করবেন সেটা ঠিক করতে পারছেন না? যারা এই ধরনের প্রব্লেম ফেস করতেছেন তাদের বিড়ম্বনা দূর করার জন্যই এই আর্টিকেল লিখলাম। তাহলে কি বলেন? শুরু করা যাক?

সিএমএস কি?

সিএমএস বা কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম হলো  এক ধরনের ওয়েব প্রোগ্রাম যেটা আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট গুলো সহজেই সম্পাদনা পরিবর্তন প্রকাশ ইত্যাদি কাজ করার সুবিধা প্রদান করে। এই ধরনের সিস্টেমে সাধারণত আগে থেকেই সব ধরনের ফাংশন করে রাখা হয় যেগুলো ইচ্ছা মতো কাস্টমাইজ করে প্রফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তৈরী করা যায়। কোনো প্রকার কোডিং দক্ষতা ছাড়াই ওয়েবসাইট ডেভলপ করার প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য সিএমএস ইউজ করা হয়। তো  চলুন ২০২০ সালে ৭ টি সেরা কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

 

আরো পড়ুন: ফোনের কন্টাক্ট নাম্বার গুলো হারিয়ে গেছে? রিকোভার করে নিন ফেসবুক থেকে

 

ওয়ার্ডপ্রেস এখন সারা পৃথিবীর মানুষের কাছে এতটাই জনপ্রিয় যে সারা বিশ্বের টপ যাঙ্কিং ১০ মিলিয়ন সাইটের মধ্যে প্রায় ৩৫% সাইট ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করে বিল্ড করা হয়েছে। আর এখন ওয়ার্ডপ্রেস সকল সিএমএস এর মধ্যে সবার সেরা। শুরুর দিকে ওয়ার্ডপ্রেস শুধুই ব্লগিং এর জন্য থাকলেও এখন ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করে ব্লগ থেকে শুরু করে পার্সোনাল, বিজনেস, ই-কমার্স সহ প্রায় সব ধরনের সাইট বিল্ড করা সম্ভব। আর ওয়ার্ডপ্রেস এর অনেক বড় একটি সুবিধা হলো এতে আপনি বিভিন্ন ধরনের প্লাগইন ইউজ করে নুতুন নুতুন ফাংশন যুক্ত করতে পারবেন। তাছাড়া এটা সম্পূর্ণ রূপেই ওপেন সোর্স। তাই আপনার পছন্দ তালিকায় সবার উপরে ওয়ার্ডপ্রেস থাকা উচিত।

 

এখানে জুমলা বর্তমানে দ্‌বীতিয় জনপ্রিয় সিএমএস। যদিও এটা বিগেইনারদের জন্য ফ্রেন্ডলি নয় তার পরেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটা অনেক সুবিধাজনক। তাছাড়া জুমলা একটি ফ্রি এবং ওপেন সোর্স। এটার অনেক টেমপ্লেট এবং প্লাগ ইন রয়েছে, সেই সাথে থাকছে অনেক বড় ডেভলপার কমিউনিটি।

জুমলা একজন সাধারণ ইউজার থেকে শুরু করে একজন প্রফেশনাল লেভেলের ডেভলপার উভয়ের কাছেই ফ্রেন্ডলি। পোস্ট কাস্টমাইজেশন করার ক্ষেত্রে জুমলা অনেক সুবিধা প্রদান করে। এখন পর্যন্ত ১৮ লাখেরও বেশী ওয়েবসাইট জুমলা ইউজ করে বিল্ড করা হয়েছে। তো কি ভাবছেন, আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস এর বিকল্প কোনো সিএমএস খুঁজেন তাহলে জুমলা আপনার জন্য অনেক ভালো একটা সমাধান হতে পারে।

 

জনপ্রিয়তার দিক থেকে ড্রুপালের অবস্থান তৃতিয়। ওয়ার্ডপ্রেস এবং জুমলা এর মতো এটাও একটি ওপেন সোর্স সিএমএস। কিন্তু জনপ্রিয়তার দিক থেকে এটা দিন দিন ওয়ার্ডপ্রেস এবং জুমলা এর তুলনায় অনেক পিছিয়ে পরছে।

ব্লগ কাস্টমাইজেশনের জন্য এটা উনেক ভালো  ইউজার ইন্টারফেস প্রদান করে। তাছাড়া ড্রুপাল ই-কমার্স সাইট বিল্ড করার জন্য পারফেক্ট একটি  সিএমএস। চমৎকার ইউজার ইন্টারফেস এর সাথে এতে প্রায় ৩৬ হাজার এক্সটেনশন রয়েছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ছয় লাখ সাইট ড্রুপাল ইউজ করে বিল্ড করা হয়েছে।

 

ই-কমার্স সাইট ম্যানেজ করার জন্য ম্যাজেন্টো  অসাধারন ওপেন  সোর্স সিএমএস। সি প্যানেল থেকে সরাসরি ইনস্টল করে ম্যাজেন্টো অ্যাডমিন প্যানেল থেকে আপনি খুব সহজেই আপনার ই-কমার্স স্টোর বিল্ড করতে পারেন।

ম্যাজেন্টোতে সাইট বিল্ড করার জন্য আপনার আলাদা কোনো ডেভলপারের প্রয়োজন নেই। জাস্ট এইচটিএমএল এবং সিএসএস এর উপর ভালো দক্ষতা থাকলে আপনি নিজেই সাইট ডেভলপ করতে পারবেন। এখন পর্যন্ত দুই লাখের বেশি সাইট ম্যাজেন্টোতে বিল্ড করা হয়েছে। অনলাইন মার্কেটিং এর জন্য এটি আসলেই অসাধারন একটি সিস্টেম।

 

এটা আমাদের গুগল মামার একটি ফ্রি প্লাটফরম। পাইরা ল্যাবস নামক একটি কোম্পানি এটি তৈরী করে। এর পর ২০০৩ সালে আমাদের গুগল মামা এটা কিনে নেয় এবং এটা সবার জন্য এটা উন্মুক্ত করে দেয়। বিগেইনারদের জন্য এটা একটি সেরা ব্লগিং প্লাটফরম। আপনি যদি এক পয়সাও খরজ না করে প্রফেশনাল লেভেলের ব্লগ তৈরীই করতে চান তাহলে ব্লগার আপনার জন্য সেরা চয়েস হতে পারে। আপনি এখন আমার যে সাইটে অবস্থান করছেন সেটাও ব্লগারেই বিল্ড করা হয়েছে।

ব্লগার প্লাটফর্মটি অনেক বড় হলেও এটাতে সুযোগ সুবিধা অনেক কম। এটা জাস্ট পার্সোনাল ব্লগ তৈরীর জন্য। ব্লগারে সাইট বিল্ড করার জন্য আপনি ফ্রীতেই অনেক টেমপ্লেট পেয়ে যাবেন। জাস্ট টেমপ্লেট ইনস্টল করে আপনি অসাধারন সাইটও বিল্ড করতে পারেন। যেহেতু এটা গুগল মামার তাই আপনি আপনার জিমেইল একাউন্ট দিয়েই এটাতে লগইন করে ফেলতে পারেন। আপনি আপনার একটি গুগল একাউন্ট দিয়ে এটাতে সর্বোচ্চ ১০০ টি ব্লগ তৈরী করতে পারেন।

 

আরো পড়ুন: ফোন কল চলমান থাকা অবস্থায় দ্রুত কিছু নোট করার জন্য আর খাতা কলম খুঁজতে হবে না।

তো বন্ধুরা এই ছিল আজকের আর্টিকেল, আর্টিকেল টি ভালো লাগলে আমার ব্লগ সাইট ভিজিট করার অনুরোধ রইলো, আগামীতে দেখা হবে অন্য কোনো আর্টিকেলে, ধন্যবাদ

Leave a Reply