ধারাবাহিক ভাবে গার্মেন্টসের কাজ শিখুন (ডিফেক্ট পর্ব)

আসসালামু আলাইকুম ।

আশা করি সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন ।

তো আমি যেই বিষয়টি নিয়ে পোষ্ট করতে চলেছি আশা করি আপনারা টাইটেল দেখে সেটা বুঝে গেছেন ।

আগের পোস্টঃ

 গার্মেন্টসের কাজ শিখুন (সূচনা)
 ধারাবাহিক ভাবে গার্মেন্টসের কাজ শিখুন(টেক্সটাইল ভাইবা প্রশ্ন)
 ধারাবাহিক ভাবে গার্মেন্টসের কাজ শিখুন(টেক্সটাইল ভাইবা প্রশ্ন ০২)
 গার্মেন্টসের কাজ শিখুন (কিছু প্রডাক্ট পরিচিতি)
ধারাবাহিক ভাবে গার্মেন্টসের কাজ শিখুন(মেজারমেন্ট টেপ )

 

 আজ আমরা শিখব ডিফেক্ট বা ওয়াল্টার কাকে বলে কত প্রকার ও কি কি ৷

 

ডিফেক্ট ওয়াল্টার কাকে বলে?

উওরঃ ডিফেক্ট অর্থ হচ্ছে ত্রুটি, যাহা কোন পণ্যের গুণগত মানকে ক্ষুন্ন করে তাকে ডিফেক্ট বলে ৷

 

ডিফেক্ট তিন প্রকার: যথা

 ক্রিটিকাল ডিফেক্ট
মেজর ডিফেক্ট
মাইনর ডিফেক্ট

 

ক্রিটিকাল ডিফেক্ট: যে ত্রুটিসমূহ পোশাক বা পন্য আইনগত বা চুক্তিগত গ্রহণযোগ্যতা থেকে দূরে রাখে অথবা যে ত্রুটিসমূহ পোশাক ভোক্তার ক্ষতির কারণ হয় সে সব ডিফেক্ট কে ক্রিটিকেল ডিফেক্ট বলে ৷
মেজর ডিফেক্ট: যে ত্রুটিসমূহ  থাকলে পোশাক বা পণ্য বিক্রিতে সমস্যা হয় বা বিক্রি হয় না বা বিক্রি হলেও ক্রেতা অসন্তুষ্ট হয়ে পন্য দোকানে ফেরত দিয়ে যায় সেই সব  ডিফেক্ট কে মেজর ডিফেক্ট বলে ৷
মাইনর ডিফেক্ট: যে সমস্ত ত্রুটি পন্যের বাহ্যিক সৌন্দর্য এবং উপকারিতা নষ্ট করে না কিন্তু একই সময়ে পূনরাবৃত্তির ফলে সিমেন্টে বা লটের মর্যাদা খর্ব করে সেই সব ডিফেক্ট মাইনর ডিফেক্ট বলে ৷

 

ক্রিটিকাল ডিফেক্ট: লেবেল মিসিং, রক্তের দাগ, প্রোসেস মিসিং ইত্যাদি 

 

মেজর ডিফেক্ট:

মাইনর ডিফেক্ট:সুতা না কাটা (সুতা ২mm এর উপর থাকলে), লুজ সুতা, ফ্লাইং সুতা, আপ-ডাউন ৷

তো আজকে এই পর্যন্তই । দেখা হবে হবে  পরের পোষ্টে  । সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন এবং আমারটিপ্সর সাথেই থাকুন। আর কোনো কিছু বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্ট করুন ।

Leave a Reply