বান্দাহর হক সম্পর্কে কেন সাবধান হবেন?

আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন…..? আশা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি ।আসলে কেউ ভালো না থাকলে amartips তে ভিজিট করেনা ।তাই আপনাকে amartips তে আসার জন্য ধন্যবাদ ।ভালো কিছু জানতে সবাই amartips এর সাথেই থাকুন।

আখেরাতের প্রস্তুতি নিয়ে

বান্দাহর হক সম্পর্কে সাবধাণ পর্ব ১

আখেরাতের প্রস্তুতির জন্য যাদের সাথে কথা বলে জান্নাতের রাস্তা নিষ্কণ্টক করে নিতে হবে এখানে তার কিছু আলোকপাত করা হল: মাতার পিতার হক আদায় করে নিতে হবে। কারণ আল্লাহর সন্তুষ্টি নির্ভর করছে পিতা মাতার সন্তুষ্টির উপর। আর আল্লাহর অসন্তুষ্টিও মাতা পিতার অসন্তুষ্টির উপর নির্ভর করেছে। যেহেতু আল্লাহর হক আদায় করার পর মায়ের হক আদায়ের জন্য তিনবার উল্লেখ আছে, তাই মাকে যেকোন মুল্যে খুশি রাখতে হবে। মায়ের খেদমত করে তার খুশি করতে হবে। মায়ের কাছে মাফ চেয়ে নিতে হবে। এখন থেকে মায়ের জন্য খাদ্য দ্রব্য, মিষ্টি, ফলমুল, কাপড় চোপড় ও প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়মিত দেয়ার জন্য নিশ্চিত উদ্যোগ নিতে হবে। যদি মাতাপিতা বেঁচে না থাকেন তাহলে খালাকে ও চাচাকে, তাও না থাকলে তাদের বন্ধু বান্ধবিদের সন্তুষ্ট রাখার চেষ্টা করতে হবে। চাকুরি নিতে হলে যেমন কর্তৃপক্ষকে খুশি করার জন্য ধারণা দেৎঅ হয় অনেক উপঢৌকনের ব্যবস্থা করা হয় মাকে খুশি করার জন্য তার চেয়েও বেশি তৎপর হতে হবে। মনে রাখতে হবে এটা আমার ঠেকা। এটা না হলে আমার আখেরাত বরবাদ হয়ে যাবে। পিতার খেদমত একইভাবে করতে হবে। আল্লাহ তায়ালা মাতা পিতার সম্মান করার জন্য বলেছেন “কথা বলার সময় বিরক্তিকর শব্দ ‘উহ’ পর্যন্ত বলা যাবে না।” যে কথায় পিতা মাতার সামান্যতম কষ্ট হয় এমন ধরণের কথাও বলাও যাবে না। ধমক দেয়া যে কত বড় কষ্টের কারণ তা প্রায় সকলের জানা আছে। তাদের সম্মানজনক ভাবে কথা বলতে হবে। অসম্মান হয় এমনভাবে কথা বলা যাবে না। মুখ দিয়ে কখনও তাদেরকে গালি দেয়া যাবে না। অন্যের মাতা পিতাকেও গালি দেয়া যাবে না। কারণ অন্যের পিতা মাতাকে গালি দিলে তারাও আপনার পিতা মাতা তুলে গালি দিবে। পিতামাতার সাথে নম্রভাবে মাথানত করে কথা বলতে হবে। নিজেকে অসহায়ের মত ছোট মনে করে তাদের সাথে কথা বলতে হবে। তাদের জন্য অনবরত দোয়া করতে থাকতে হবে: “হে আমার রব, যেমন করে আমার পিতা মাতা আমাকে ছোটবেলায় লালন পালন করে রহম কলেছে তেমনি করে তাদের প্রতি তুমি রহম কর।” (সুরা বনী ইসরাঈল: ২৪) প্রিয় ভাই ও বোনেরা লাইক কমেন্ট শেয়ার করে ইসলামি দাওয়াতে আপনিও অংশগ্রহণ করুন। প্রিয় বন্ধুরা জানার স্বার্থে দাওয়াতি কাজের স্বার্থে আর্টিকেলটি অবশ্যই শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন। হতে পারে আপনার একটি শেয়ার বহু মানুষ উপকৃত হবে ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply