একজন সত্যিকারের মুসলিম নেতার তার প্রজাদের প্রতি কেমন আচারণ করা উচিত উমর (রা) এর ছোট্ট একটি ঘটনাতে জেনে নেই।

আস্সালামুআলাইকুম। আশা করি সবাই আল্লাহ তাআলার অশেষ রহমতে ভালো আছেন। আপনাদের দোয়ায় আমিও ভালো আছি।
.
আজকে আমি একটা নতুন এবং হেল্পফুল পোষ্ট নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি।
.
আশা করি সবার উপকারে আসবে। সবাই ধৈর্য ধরে সবাই পোষ্ট টা পরবেন আর কিছু না বুজলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করেন। তো শুরু করা যাক।
.
অনেকেই হয়ত টাইটেল দেখে বুঝে গেছেন কি নিয়া আলোচনা করব।

.
একবার হযরত উমর
(রা)
তাঁর খেলাফতের সময় তার
দাস আসলামের সাথে
হাররাহ (মদিনার
শহরতলির) দিকে তার
স্বাভাবিক চক্কর দিয়ে
যাচ্ছিলেন,
.
যখন তিনি
মরুভূমিতে দূরের আগুন
দেখতে পেলেন। তিনি
বলেছিলেন, “এখানে
একটি পরিবার রয়েছে বলে
মনে হচ্ছে সম্ভবত,
এটি এমন একটি কাফেলা
যা রাত পরার কারণে
শহরে প্রবেশ করতে
পারেনি।
.
চলো আমরা
তাদের দেখাশোনা করি
এবং রাতের বেলা
তাদের সুরক্ষার ব্যবস্থা
করি।”
.
সেখানে পৌঁছে তিনি এক
মহিলা এবং কিছু শিশুকে
দেখতে পান। বাচ্চারা
কাঁদছিল।
.
মহিলাটি
আগুনের উপরে পানির
পাত্র জ্বালাচ্ছিল।
.
হযরত ওমর
(রা)
তাকে সালাম দিয়ে
শুভেচ্ছা জানালেন এবং
তার অনুমতি নিয়ে তাঁর
কাছে গেলেন।
(মহিলাটি চিনতে
পারেনি যে এটি উমর)।
.
উমর, “এই শিশুরা কাঁদছে
কেন?”
মহিলাটি, “কারণ তারা
ক্ষুধার্ত।”
উমর, “পাত্রে কী আছে?”
মহিলাটি, “কেবলমাত্র
শিশুদের প্রশ্রয় দেওয়ার
জন্য জল, যাতে তারা এই
বিশ্বাসে ঘুমাতে যায়
যে তাদের জন্য খাদ্য
প্রস্তুত করা হচ্ছে।
.
আহ!
আল্লাহ উমর
(রা)
এবং আমার মধ্যে

ফয়সালা করবেন
কেয়ামতের দিন, কারণ
আমার দুর্দশায় আমাকে
অবহেলা করছেন। ”
.
উমর (কাঁদতে কাঁদতে)
বললেন, “আল্লাহ আপনার
প্রতি দয়া করুন! উমর
কীভাবে আপনার দুর্দশার
বিষয়টি জানতে
পারবেন?”
.
মহিলাটি, “যখন সে
আমাদের আমির, তখন সে
অবশ্যই আমাদের সম্পর্কে
অবহিত
থাকবেন।”
.
হযরত ওমর (রা) শহরে ফিরে এসে
সরাসরি ময়দা, খেজুর,
চর্বি এবং কাপড় দিয়ে
একটি বস্তা ভরাতে
বায়তুল মাল (দাতব্য ঘড়)
যান এবং কিছু টাকা
নেন। বস্তাটি প্রস্তুত
হয়ে গেলে তিনি
আসলামকে বললেন, এবার
এই ব্যাগটি আমার পিঠে
রাখো, আসলাম।
.
আসলাম, “না দয়া করুন, আমির-
উল-মোমেনীন! আমি এই
ব্যাগটি নিয়ে যাব।”
.
উওর আসলামের কথা শুনতে
অস্বীকৃতি জানালেন উমর,
.
এমনকি আসলাম তাকে ব্যাগটি
বহন করার জন্য অবিরাম
অনুরোধ জানিয়েও তিনি
মন্তব্য করেছিলেন, “কি!
কিয়ামতের দিন তুমি
আমার বোঝা বহন করবে?
.
আমাকে অবশ্যই এই
ব্যাগটি বহন করতে হবে,
কারণ আমিই সে হব যে
মহিলা সম্পর্কে (পরকালে)
প্রশ্নবিদ্ধ। ”
.
আসলাম খুব অনিচ্ছুকভাবে
ব্যাগটি উমরের
(রা)
পিঠে রাখল, যিনি
মহিলাটির তাঁবুতে
দ্রুত গতিতে
এনেছিলেন বস্তাটি।
.
আসলাম তার
পিছনে পিছনে গেলেন।
.
সে কড়াইতে সামান্য
ময়দা এবং কিছু খেজুর
এবং চর্বি লাগিয়ে
নাড়তে শুরু করল।
.
সে
আগুনে জ্বলাতে আগুনে
ফুঁকালো (তার মুখ দিয়ে)।
.
আসলাম বলে, “আমি তার
ঘন দাড়ি দিয়ে ধোঁয়া
উড়ে যেতে দেখলাম।”

.
কিছু সময় পরে, খাবার
প্রস্তুত হলো। তিনি
নিজেই পরিবারটিকে
পরিবেশন করেছেন।
.
তারা যখন তাদের খাবার
খেয়ে ফেলল, তখন তাদের
পরের খাবারের জন্য
রেখে দেওয়া সামান্য
পরিমাণ তাদের দিয়ে
দিল বাচ্চারা তাদের
খাওয়ার পরে খুব খুশি
হয়েছিল এবং আনন্দের
সাথে খেলতে শুরু
করেছিল।
.
মহিলাটি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ
এবং অনুভূত হয়ে
বলেছিলেন, “আল্লাহ
আপনার প্রতিদানের জন্য
আপনাকে প্রতিদান দিন!
.
বাস্তবে আপনি উমরের
পরিবর্তে খলিফার স্থান
নেওয়ার যোগ্য।”
.
উমর (রা) তাকে সান্ত্বনা
দিয়ে বললেন, তুমি যখন
খলিফা দেখতে আসবে
তখন আমাকে সেখানে
দেখতে পাবে।
.
তিনি কাছাকাছি
স্থানে কিছুক্ষণ বসে
থাকলেন এবং শিশুদের
দেখছিলেন। অতঃপর
তিনি মদীনায় ফিরে
আসেন।
.
ফিরে আসার সময়
তিনি আসলামকে বললেন,
“তুমি জান কেন আমি
সেখানে বসেছিলাম,
আসলাম?
.
আমি তাদের
কষ্টে কাঁদতে দেখেছি।
কিছুক্ষণ হাসতে ও
আনন্দিত হতে দেখে আমি
খুবই আনন্দিত।”
.

আশা করি পোষ্ট টা আপনার উপকারে আসবে।
.
আর একটা কথা কোনো প্রকার ভুল হলে ছোট্ট ভাই মনে করে ক্ষমা করে দিবেন। আর ভুলটা কমেন্ট বক্সে উল্লেখ করে দিবেন।
.
তো ভালো থাকুন সুস্থ্য থাকুন ট্রিক বিডির সাথে থাকুন ট্রিক বিডি নিয়ম কানুন মেনে চলুন আর ট্রিক বিডি কে আরো উন্নত করতে বেশি বেশি উন্নত পোষ্ট করুন!
.
খোদা হফেজ।

Leave a Reply