রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০৩)

আজকের পর্বে আমরা জানবো কাউকে কষ্ট দিলে কি হয় কিভাবে গাড়ি চলাচল করতে হবে ?
পথ চলাচল করতে হবে?
পথের মধ্যে কাউকে কষ্ট দিলে কি হবে ?৷কোন কষ্ট বা বস্তু দেখলে কি করতে হবে দোকানের সীমানা কতটুকু রাখতে হবে কাউকে ঠকানো যাবে কিনা তাহলে চলুন আজকে আমরা জেনে নেই রাস্তা বা পথ চলাচলের হকের ২য় হক কি বলে আমাদের ৷

আগের পোস্ট যারা দেখেনি তাদের জন্য
Part-01
Part 02
দ্বিতীয় হক : কাউকে কষ্ট না দেওয়া

রাস্তায় দাঁড়ানো বা বসা ব্যক্তির খেয়াল রাখা উচিত, যেন তার দ্বারা কোনো চলাচলকারীর সামান্য কষ্টও না হয়।

কষ্ট দেওয়ার বিভিন্ন পন্থা

এমনভাবে দাঁড়ানো বা বসা যে যাতায়াতকারীর কষ্ট হয়। কিংবা রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলা, টায়ার জ্বালানো, অহেতুক রাস্তা বন্ধ করা, ফলের খোসা, ময়লা, উচ্ছিষ্ট খাবার ফেলা Ñআল্লাহ রক্ষা করুনÑ পানের পিক ফেলা, দুর্গন্ধ ছড়ায় এমন কোনো জিনিস ফেলে রাখাÑ সবই কষ্ট দেওয়ার নানা উপায়। তেমনি ফুটপাতে বা রাস্তায় হকার মার্কেট বসানো, যার কারণে চলাচলের পথ সংকীর্ণ হয়ে যায় এটিও কষ্ট দেওয়ার অন্তর্ভুক্ত।

(দোকানের) সীমানা বাড়ানো কষ্টদায়ক

দোকানের সীমানা বাড়াতে বাড়াতে রাস্তার মধ্যে চলে যাওয়া, যে কারণে রাস্তা বন্ধ হয়ে যায় বা সংকীর্ণ হয়ে যায়। এটিও পথিকের কষ্টের কারণ।

আমাদের বাজারগুলোতে দেখা যায়, দোকানের অর্ধেক ভেতরে আর অর্ধেক বাইরেÑ ফুটপাতে। মনে হয় যেন ফুটপাত দোকানদারের হক! অথচ সবাই জানে এটি দোকানের অংশ নয়; ক্রেতাদের জন্য বানানো হয়েছে, যাতে যাতায়াত সহজ হয়। কিন্তু এখন ফুটপাতই দোকান বনে গেছে। অনেকে তো ফুটপাতে ঘর বানিয়ে শাটার লাগিয়ে রীতিমত মার্কেট বানিয়ে ফেলে।

যাদের দোকান নেই তারা ফুটপাত দখল করে ভ্যান দাঁড় করিয়ে দোকান খুলে বসে। এতে রাস্তা সংকীর্ণ হয়ে যায়। অথচ এটি সরকারীভাবে নিষিদ্ধ। আইন থাকতেও আমাদের এই অবস্থা। এ কারণে বাজারে আসা-যাওয়ার সময় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

একটি হুকুমের উপর আমল না করার কারণে সকল মুসলমান কষ্ট পাচ্ছে। আমরা যদি রাস্তার এই হক বুঝে এর উপর আমল করি, তাহলে আমাদের রাস্তাগুলো প্রশস্ত হয়ে যাবে, চলাচলে কষ্ট হবে না।

ঈমানের সর্বনিম্ন শাখা

রাস্তা বন্ধ করে কষ্ট দেওয়া তো দূরের কথা রাস্তায় কোনো কষ্টদায়ক জিনিস দেখলে ঈমানের দাবি হল তা সরিয়ে দেওয়া, এটি ঈমানের সর্বনি¤œ স্তর। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনÑ

الْإِيمَانُ بِضْعٌ وَسَبْعُونَ – أَوْ بِضْعٌ وَسِتُّونَ – شُعْبَةً، فَأَفْضَلُهَا قَوْلُ لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ، وَأَدْنَاهَا إِمَاطَةُ الْأَذَى عَنِ الطَّرِيقِ، وَالْحَيَاءُ شُعْبَةٌ مِنَ الْإِيمَانِ.

ঈমানের সত্তরের অধিক শাখা রয়েছে, সর্বোত্তম শাখা ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলা, সর্বনি¤œ শাখা রাস্তা হতে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেওয়া, আর লজ্জা ঈমানের গুরুত্বপূর্ণ শাখা। ­Ñসহীহ মুসলিম, হাদীস ৩৫

আরেক রেওয়ায়েতে আছে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আবু যর গিফারী রা.-কে নসীহত করেন; তার মাঝে একটি উপদেশ ছিলÑ

وَإِمَاطَتُكَ الحَجَرَ وَالشَّوْكَةَ وَالعَظْمَ عَنِ الطَّرِيقِ لَكَ صَدَقَةٌ.

রাস্তা থেকে পাথর, কাঁটা, হাড্ডি সরানোও সদাকা। Ñজামে তিরমিযী, হাদীস ১৯৫৬

মুমিনের কাছে ঈমানের ন্যূনতম দাবি হল, সে যখন রাস্তায় চলবে কষ্টদায়ক কিছু দেখলে সরিয়ে দেবে। হতে পারে এই ওসীলায় সে নাজাত পেয়ে যাবে।

রাস্তা থেকে কাঁটাদার গাছ কাটার পুরস্কার

এই ঘটনা একাধিক হাদীসে এসেছে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমি এক ব্যক্তিকে জান্নাতের গালিচায় গড়াগড়ি খেতে দেখলাম (অর্থাৎ শান্তি ও আরামের সাথে সুখময় জীবন কাটাচ্ছে)। মানুষের চলাচলের পথে একটি গাছ ছিল, যার কারণে চলাচলে কষ্ট হচ্ছিল। এ ব্যক্তি তা কেটে দিয়েছিল। (ফলে আল্লাহ খুশি হয়ে তাকে জান্নাতে দাখেল করেন।) Ñসহীহ মুসলিম, হাদীস ১৯১৪

কোনো বড় আমলের কারণে নয়; বরং মানুষের যাতায়াতের রাস্তায় একটি কাঁটাদার গাছ ছিল, এ ব্যক্তি সেটি কেটে দিয়েছিল, যাতে পথিকের পথ চলা নির্বিঘœ হয় এই আমলের বরকতেই আল্লাহ তাকে জান্নাতে পৌঁছে দিয়েছেন।

আমরা রাস্তায় চলার সময় কত কষ্টদায়ক বস্তু নজরে পড়ে, কিন্তু আমরা মনে করি এটা তো সরকারের কাজ, তারা করবে। ঠিক আছে তাদের করা উচিত, কিন্তু আমরা মুসলমান সুতরাং এটা আমাদেরও দায়িত্ব। কারণ এটি ঈমানের দাবি।

গাড়ি পার্কিংয়ের দ্বারা মানুষকে কষ্ট দেওয়া

রাস্তায় কষ্টদায়ক কাজের মধ্যে সাইকেল, মোটর সাইকেল, গাড়ি পার্ক করাও শামিল। আমরা নিষিদ্ধ জায়গায় গাড়ি পার্ক করব না। আর যেখানে অনুমতি আছে সেখানেও এমনভাবে করব, যেন অন্য গাড়িওয়ালাদের কষ্ট না হয়। অনেক সময় আমরা কারো দোকানের সামনে এমনভাবে গাড়ি রাখি যে, দোকান বন্ধ হয়ে যায়। গ্রাহক আসতে পারে না বা আসতে কষ্ট হয়। আমি তো গাড়ি রেখে চলে গেলাম, দোকানদার কিছু বলতে পারল না বা কাজে ব্যস্ত ছিল, পরে পেরেশান হল। এভাবে যাতায়াতের রাস্তায় গাড়ি দাঁড় করানো হতে বেঁচে থাকব।

গাড়ি চালানোর সঠিক পদ্ধতি

হযরত ডা. হাফিজুল্লাহ ছাহেব রাহ. বলেন, মুফতী মুহাম্মাদ হাসান রাহ.-এর একজন খাদেম ছিলেন বাঁট সাহেব। তিনি বলেন, আমার প্রতিদিনের রুটিন ছিল মুফতী ছাহেবকে গাড়িতে করে বাড়ি থেকে মাদরাসায় নিয়ে যাওয়া ও বাড়িতে নিয়ে আসা। একবার মুফতী ছাহেব আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কি গাড়ি চালাতে পার? হযরতের এ প্রশ্ন শুনে আমি ভয় পেয়ে গেলাম, কী জবাব দিব? চিন্তা করতে লাগলাম, প্রতিদিন হযরতকে নিয়ে আসা যাওয়া করি, আর তিনি বলছেন গাড়ি চালাতে পারি কি না! ভয়ে ভয়ে বললাম, কিছু কিছু পারি। আপনি বলে দিন কীভাবে চালাতে হয়। তিনি বললেন, ‘এমনভাবে চালাতে হয় যেন কোনো মানুষ ও প্রাণী কষ্ট না পায়’।

এভাবে গাড়ি চালাবে যে, কুকুর বিড়াল সামনে দিয়ে গেলে তাদেরও পেরেশানি না হয়।

আবার দেখা হবে পরের পোস্টে……………
ধন্যবাগ ৷

Leave a Reply