POCO X3 INDIAN 6/128 আমার ২ সপ্তাহের ইউস এর পারসোনাল রিভিউ।

আমি কিনেছি Poco x3 Indian Varient.(6-128) ফোনটি দেশে অফিসিয়াল নেই তাই ২২ হাজার দিয়ে কিনেছি।

আজকে ফোনটি ২ সপ্তাহ চালানোর পর রিভিউ দিচ্ছি। আপনার কেন ঠিক হবে কিনা তা বুঝতে পারবেন এখানে।
ফোন কিনতে মানুষ নিম্নোক্ত কিছু বিষয় দেখেই কিনে এবং আমি তাই বিস্তারিত লিখব।

BATTERY

Indian Varient এ বিশাল ৬ হাজার এর ব্যাটারি রয়েছে যা গ্লোবাল NFC তে রয়েছে ৫ হাজার এর। সাইজ অনুযায়ী ইন্ডিয়ান ফোন এ আপনি ব্যাকআপ বেশি পাবেন। আমি পাব্জী প্লেয়ার এবং দীর্ঘ ৬ ঘণ্টা pubg খেলার পর আমার ব্যাটারী ছিল ২০+ পারসেন্ট।(120hz) আমি গেমিং , ফেসবুক , ছবির কিছু কাজ করে ব্যাকআপ পেয়েছি ১০ ঘণ্টা এবং চার্জ অবশিষ্ট ছিল ২৫+ পারসেন্ট।(60hz) আমি একদম নরমাল ইউস এ কোনো গেমিং ছাড়া ব্যাকআপ পেয়েছি ১৩ ঘণ্টা এবং ব্যাটারী বাকি ছিল ২০+ পারসেন্ট। (60Hz). ফোনটি ৮০-৯০ পারসেন্ট এ যেতে প্রতি মিনিটে ১ পারসেন্ট করে চার্জ হয় এবং ৯০-১০০ পারসেন্ট চার্জ হতে ২০+ মিনিট লাগে। ০-৮০ পারসেন্ট চার্জ খুবই তারাতারি হয় ৪৫-৫৫ মিনিট লাগে। অর্থাৎ ১:৩০ মিনিটেই ফুল চার্জ।

CAMERA

এতে আছে ৬৪Mp প্রাইমারি ক্যামেরা। এর বেক ক্যামেরা দিয়ে ছবি ভালই উঠে কিন্তু লো লাইটে আমার তেমন ভাল লাগেনি। পোট্রেট মোড় বলতে গেলে আমার খুব বাজে লেগেছে। কেন জানি না ছবি একদম নয়েজে এবং এক বিশ্রী কালার হয়ে যায়। কিন্তু গুগল কেমরা ইউস করাতে একদম মেজিক এর মত লাগে। Slowmo,Timeleps ইত্যাদি ভালই কাজ করে তবে কুয়ালিটি কমে যায় একদম। এতে Clone Mode খুবই ভাল ভাবে কাজ করে এবং এরে Blog mod একদম সেরা। সেলফি ক্যামেরা আমার ভালই লেগেছে আপডেট এর পর। আশা করি সামনের আপডেট এ আরো অনেক ভাল হবে। এর pro mod এ একদম প্রো দের মত ছবি তোলা যায়।

GAMING

আমার আগের ডিভাইস ছিল SD430
এখন SD733G বুঝতেই পারছেন অনেক বড় আপগ্রেড। আমার কাছে পারফরমেনসে পুরাই মাখন। Pubg তে ৪০-৫০ FPs এ ধুমধাম খেলেছি এবং এর 120Hz display and 240hx touch sampling rate এর কারণে এক্সপেরিয়েন্স পুরাই মাখন লেগেছে।

DISPLAY

এতে আছে ফুল HD display যার রেযুলেশন বাজেট অনুযায়ী ভালই ছিল। এতে আমি Avangers 1080P তে ডাউনলোড করে দেখেছি (৫জিবি) এবং পুরাই জোশ লেগেছে। তবে Ips ডিসপ্লে হওয়ার কারণে এর কালার আমার সুন্দর লাগে নি। আমার আগের ফোনেও সেইম ডিসপ্লে থাকলেও তার কালার অনেক সুন্দর ছিল। তবে এখানে ভিডিও টুল বক্স নামে একটি ফিচার আছে যা দিয়ে মুভি দেখার টাইম এইসব চুটকি বাজিয়ে ঠিক করে ফেলা যায়।

SPEAKER

এটি ছিল পুরাই বোম একটি। ডুয়েল স্পিকার টি ছিল খুব loud এবং খুব ক্লিয়ার। মুভি এবং গেইম খেলে খুবই মজা পাওয়া যায় কিন্তু এর বেক সাইডে ভাইব্রেট করে খুব। কভার দিলে তেমন বুঝা যায় না তবে। এতে স্পিকার এর ডাস্ট ক্লিয়ার করার একটি ফিচার দিয়েছে যা দারুন লেগেছে আমার কাছে।

BUILD QUALITY

এটি ছিল খুবই বাজে। ফোনটি দেখতে যেমন বিশ্রী এর বিল্ড কুয়ালিটি তেমন বাজে। কিন্তু কাভার ইউস করার কারণে চোখের সামনেই পরে না এর লুক। ফোনটি ফুল প্লাস্টিকের এবং খুব সহজেই স্ক্র্যাচ পরে যায়। আমি সামনে পেছনে প্রটেক্টর লাগিয়ে ইউস করি তাই আপাতত একদম ফেস আছে। এই ভলিউম বাটন গুলো খুব চিপ ফিল হয়। ফোনটি হাতে নিলে খুব ভারী এবং একহাতে ইউস করা অসম্ভব। তবে ২-৩ দিন ইউস করলে একদম ইজি হয়ে যায়। আমাকে অনেকেই এই ফোন নিয়ে প্রশ্ন করেছে তাই যা যা প্রশ্ন আপনাদের থাকতে পারে ta নিয়ে পোস্ট টি লিখলাম। অফিসিয়াল ফোন বন্ধ হবে কিনা, এই ফোনের ফিচার কি কি আছে এইসব নিয়ে প্রশ্ন করবেন না। ফোনটি বিস্তারিত স্পেসিফিকেশন আমি লিংক দিয়ে দিব এবং আনফিসিয়াল ২২হাজার ইন্ডিয়ান যা বাংলাদেশে অফিসিয়ালি নেই। তাই বিদেশ থেকে আনা যে কথা এখন থেকে কেনা same অবস্থা ছিল আমার জন্য। পরে যদি রেজিস্ট্রেশন বা এমন কোনো ঝামেলা আসে আমার সমস্যা নেই কারণ আমার টার্গেট ছিল ইন্ডিয়ান ভেরিয়েন্ট কেনা।
POCO X3 FULL SPECIFICATIONS

Leave a Reply