রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০৫)

আসসালামু আলাইকুম শুভ সকাল আজ আমরা শিখব রাস্তার হকের ৫ম হক আমাদের কি শিক্ষা দেয় ৷ 

আপনি জানেন কি? পথ চলতে এমন অনেক মানুষ পাওয়া যায়, যারা পথ চেনে না। এমন পথিকদের পথ দেখিয়ে দেওয়া মহৎ নেক কাজ। এর গুরুত্ব কেবল পথহারা লোকেরাই উপলদ্ধি করতে পারে।  এটিকে নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সদাকা বলে গণ্য করেছেন।

 

 যারা আগের পোস্ট গুলো দেখেন নাই তারা দেখে নিন:

রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০১)
রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০২)
রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০৩)
রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০৪)
রাস্তা বা পথ চলাচলের হক বা আদব সমূহ কি (পর্ব-০৫)

 

 ইসলামে পথহারা পথিক কে পথ দেখানোর ব্যাপারে কি বলে সেটা জানবো ৷ তার আগে আল্লাহর প্রতি আপনি একবার শুকরিয়া শরিফ আলহামদুলিল্লাহ বলেন ৷ কেননা পথ না চেনা ব্যক্তিকে পথ দেখিয়ে দেয়া তোমার জন্য একটি সদাকা ।

 

 তো বন্ধুরা আজকের পোস্ট শুরু করা যাক ৷

 

পঞ্চম হক : পথহারাকে পথ দেখিয়ে দেওয়া 

 

পথ চলতে এমন অনেক মানুষ পাওয়া যায়, যারা পথ চেনে না। এমন পথিকদের পথ দেখিয়ে দেওয়া মহৎ নেক কাজ। এর গুরুত্ব কেবল পথহারা লোকেরাই উপলদ্ধি করতে পারে।  এটিকে নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সদাকা বলে গণ্য করেছেন। তিনি বলেছেন,

 

وَإِرْشَادُكَ الرَّجُلَ فِي أَرْضِ الضَّلاَلِ لَكَ صَدَقَةٌ.

 

পথ না চেনা ব্যক্তিকে পথ দেখিয়ে দেয়া তোমার জন্য একটি সদাকা। জামে তিরমিযী, হাদীস ১৯৫৬ ৷

 

এলাকার বাইরে থেকে কোনো লোক কোনো এলাকায় এল। সে ঠিকানা বলতে পারে বা ব্যক্তির নাম বলতে পারে, কিন্তু তার বাড়ি চেনে না বা খুঁজে পাচ্ছে না। আমি এলাকার সব চিনি, শুধু একটু আন্তরিকতা থাকলেই তাকে পেরেশানী থেকে বাঁচাতে পারি।

 

হযরত ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত. তিনি হযরত আবু যর রা. থেকে তাঁর ইসলাম গ্রহণের পুরো ঘটনা বর্ণনা করেন। সে দীর্ঘ ঘটনার মাঝে রয়েছে যে, হযরত আবু যর রা. বলেন, নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পুরোপুরি খোঁজ-খবর নিতে আমি নিজেই মক্কা শহরে পৌঁছলাম। কিন্তু তাঁকে চিনলাম না। কাউকে যে তাঁর সম্পর্কে জিজ্ঞেস করব সে সাহসও হচ্ছিল না। ফলে আমি মসজিদে বসে রইলাম। হযরত আলী রা. আমাকে দেখে বুঝলেন আমি মুসাফির। সাথে করে বাসায় নিয়ে গেলেন। পানাহারের ব্যবস্থা করলেন। কোনো কিছু জিজ্ঞেস করলেন না। দ্বিতীয় দিনও তিনি আমাকে মসজিদে ঐরকম দেখতে পেলেন, ফলে আগমনের উদ্দেশ্য জানতে চাইলেন। আমি কাউকে কিছু না বলার শর্তে তা জানালাম। তিনি আমাকে বললেন,

 

أَمَا إِنَّكَ قَدْ رَشَدْتَ، هَذَا وَجْهِي إِلَيْهِ فَاتَّبِعْنِي، ادْخُلْ حَيْثُ أَدْخُلُ.

 

আপনি সঠিকের সন্ধান পেয়েছেন। আমিও সেদিকেই যাচ্ছি। আপনি আমার সাথে চলুন। আমি যেখানে প্রবেশ করব আমার সাথে সাথে প্রবেশ করবেন।

অতপর হযরত আলী রা. আমাকে নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে পৌঁছে দিলেন। সহীহ বুখারী, হাদীস ৩৫২৮

 

উপরে হাদিস থেকে আমরা যা শিখতে পেলাম তা হল;

এ ছিল দুনিয়া ও আখেরাতের পথহারাকে দুনিয়া ও আখেরাত উভয় পথের সন্ধান দান।

 

এ আদবের অন্তর্ভুক্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি দিক হল, অন্ধ, শিশু, বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধিদের রাস্তা পারাপারে সাহযোগিতা করা।

 

 

আজ এ পর্যন্তই পরে পোস্ট আবার দেখা হবে ৬ষ্ট নং হক নিয়ে ৷

 

Leave a Reply