জীবনে ১ম বার সরাসরি এমন জোড়া জমজ মানব দেখলাম ৷

ছবি সুত্র গুগল

 

আজ যে কথা বলবো সেটা সত্যি কথা একবিন্দুও মিথ্যা বলবো না ৷ 

জীবনে প্রথম অন্যকে দেখার পর নিজের অজান্তেই আল্লাহাম্দুলিল্লাহ বলে ফেলি ৷

আল্লাহ আমাদের কত সুন্দর করে তৈরী করেছেন ৷ 

অফিস লান্স টাইমে হঠাৎ রাস্তা একভিক্ষুক কে দেখে আর সামনে পা বারাতে পারলাম না ৷ কে জানেন ? জানতে ইচ্ছা করছে না আপনাদের ৷ 

শুনুন তাহলে আমি বেশ হাসি খুশি হয়ে দুপুরে খাবার পর অফিসে যাবার পথে হাটতেছি হঠাৎ রাস্তার অপর প্রান্তে একভিক্ষুক আমার নজর কারে ৷

সধারনত অনেক ভিক্ষুক রাস্তায় সচরাচর থাকে কিন্তু তারা সবাই পরিচিত মুখ ৷ তাদের কারো হাত নাই, কারো পা নাই, কেওবা অন্ধ কেউ আবার অসহায় কেও কেও তো সচল থাকার পরও ভিক্ষা করে ৷ কিন্তু তারা কখনো আমার নজর কারতে বা দার করতে পারেনি ৷মনে মনে প্রশ্ন করতেছেন  তাহলে আজ কেন থামলাম ?

শুধু আমি না  আপনি দেখলে আপনিও থামনাল, আপনাকে থামতে বাধ্য করতো তার দৈহিক গঠন দেখে ৷   তার দেহের পেটে আরেকটি মানুষ ছিল ! শুনে অবাক হলেন? 

ভিক্ষুকের বয়স আনুমানিক 40 থেকে 50 ৷ দেহ বেশ সুসাস্থ মানুষের মতই বড় মোটা-শোটা ৷ তার পরনে ছিল পাঞ্জাবি ৷ দেখতেই পারতাম না, যদি পেটের উপর থেকে পাঞ্জাবি সরানো না থাকতো ৷ পেটে যে মানুষটি ছিল তার একটি দুইটি হাত দেখছি, একটি পা দেখছি এবং পেট ৷ ভালো ভাবে ভিক্ষুকে পর্যাবেক্ষন করতে পারিনি কেন যেন নিজের ভিতরে আৎরে উঠলো ৷ আফসোস হলো আল্লাহ দুনিয়াতে কত রকমের মানুষ সৃষ্টি করেছে ৷ আর তখন নিজেকে দেখে নিজের মনের অজান্তেই আলহামদুলিল্লাহ বলি ৷ 

সিনেমায় দেখা যায় এধরনের মানুষকে, কখনো বিশ্বাস করি যে মানুষ একসঙ্গে দুজন থাকতে পারে, বা একি মানুষের দুটো হাত, দুই পা, এমনকি দুইটি মাথা আবার দুইটি দেহ একসঙ্গে জোড়া লেগে থাকতে পারে ৷ কিন্তু আজ সব অবিশ্বাসকে হারমানালো  ঐ ব্যক্তি ৷ ঐ বেক্তিকে দেখার পরে সবকিছুকে বিশ্বাস করতে হচ্ছে আজ ৷ সরাচরাচর এগুলা সিনেমায় দেখা যায়, সিনেমা মিথ্যা বা অভিনয়, গ্রাফিক্স, কাল্পনিক, ইডিটিং হলেও কিছুকিছু সত্য লুকিয়ে থাকে সিনেমার ভিতরেও ৷ 

লোকটির ছবি তোলার সাহস হয়নি আমার ৷ এমনকি কথা বলবারও সাহস জাগেনি বুকের ভিতর ৷  তাকে দেখেই ভয় নয় বরং আফসোস হয়েছিল আল্লাহ কত সুন্দর করে লোকটিকে সৃষ্টি করেছেন কিন্তু দেহের মাঝে আরো একটি লোক জোরা লাগিয়ে দেছে ৷ 

সবকিছুই করতে পারে আল্লাহ ৷ দিনকে রাত, রাতকে দিন, মাহাশুন্যে পৃথিবী, চন্দ্র, সূর্য, তারা, গ্রহ আরো কতকি ৷ 

আসুন সবাই আল্লাহর নিকট ক্ষমা চাই ৷ আল্লাহ যেন ঐ রকমকরে কারো সন্তান-সন্তানদিকে আত্মীয়-স্বজনদের কারো অমন করে সৃষ্টি না করে ৷  

আল্লাহ যেন আমাদের সন্তানদের অমন বিৎঘুটে সৃষ্টি থেকে হেফাজত করে সবাই বলুন –আমিন

আজকের কথা গুলা বিশ্বাষ করা না করা সেটা আপনার বেক্তিগত বেপার ৷ 

ছবি সুত্রঃ গুগল ৷

ধন্যবাদ ৷ 

Leave a Reply