চুল পড়া রোধের উপায় ও চুলের যত্ন নেয়ার জন্য নিয়ে নিন কিছু টিপস।

আসসালামুআলাইকুম।
ও হিন্দু ভাইদের জানাই আসাব।
কেমন আছেন সবাই?

আশা করি সবাই ভাল আছেন।

আপনাদের দোয়াতে আমি ও ভাল আছি।

আজকে আপনাদের মাঝে আরেকটি লাইফ স্টাইল পোস্ট নিয়ে হাজির হলাম।

টাইটেল দেখে হয়তো বুঝে গেছেন, আজকে কোন বিষয় টা নিয়ে পোস্ট করছি।

চুল পড়া, চুলের যত্ন।


আমাদের মধ্য অনেকে আছে, যাদের অল্প বয়সে চুল ঝরে যাচ্ছে।
কিন্তু এটা রোধ করা অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে।
আজকে আপনাদের এমন কিছু টিপস দেব, যেটা ফলো করলে,আপনাদের অনেক উপকার হবে।

কথা না বাড়িয়ে কাজের দিকে যাই।
বিজ্ঞানের মতে,
একটা মানুষের দৈনিক ১০০-১৫০ টা চুল পড়তে পারে এটা স্বাভাবিক।

কিন্তু এর বেশি চুল পড়লে বোঝ যাবে এটা সমস্যা।
এবং টাক হয়ে যাওয়ার ও সম্ভবনা আছে।

কিছু টিপস ফলো করলে আশা করি চুল পড়া কমে যাবে এবং উপকার হবে আপনার চুলের।

চুল পড়া রোধে ও চুল এর যত্নে নিচের টিপস গুলো ফলো করুনঃ

১] নিয়মিত চুল ছাটাঃ

এটি চুলের জন্য খুব উপকারি, নিয়মিত চুল ছাটতে হবে।
এতে চুলের গোড়ালি মজবুত থাকবে, এবং সহজে চুল এর কোনো ক্ষতি হবে না।
আমাদের উচিৎ চুল এর নিয়মিত ছাটা।
আমাদের চুল এর স্বাস্থ ভাল রাখতে এটা করা জরুরী।

২] তেল ব্যাবহারঃ

চুল এর যত্নে তেল ব্যাবহার করা টা অত্যান্ত জরুরী। কারন তেল ব্যাবহার করলে চুল এর গোড়া মজবুত হয় এবং চুল এর স্বাস্থ ভাল রাখে তেল। মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালক বাড়াতে তেল প্রচুর সাহায্যে করে।
সপ্তাহে একবার হলেও তেল ব্যাবহার করা উচিৎ।
এতে চুল ভাল থাকে।

৩] রাসায়নিক উপাদান ব্যাবহারঃ

স্ট্রোইট করা,রং করা এগুলো চুলের অনেক ক্ষতি করে, এবং চুল এর গোড়ালি নস্ট করে ফেলে। চুলের ভঙ্গুরতা নস্ট হয়ে যায়।
তাই রাসায়নিক কোনো উপাদান চুলে ব্যাবহার করা যাবে না।

৪] শ্যাম্পুঃ

চুলে শ্যাম্পু ব্যাবহার করা উচিৎ।
বাজারে অনেক ভাল মানের শ্যাম্পু পাওয়া যায়।
মাথার ত্বক অনুযায়ী শ্যাম্পু ব্যাবহার করতে হবে।
এবং প্রতিদিন না ব্যবহার করে সপ্তাহে ৩-৪ দিন শ্যাম্পু ব্যাবহার করা উচিৎ।
এতে চুল ভাল থাকে।

এবং শ্যাম্পু নির্বাচন এর ক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে বাজারে রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রিত অনেক শ্যাম্পু পাওয়া যায়, এগুলো থেকে বিরত থাকতে হবে।

৫] খাদ্যভ্যাস ও শরীরচর্চাঃ

প্রতিদিন প্রোটিন ও লৌহ জাতীয় খাবার খাওয়া উচিৎ।
খাদ্যভ্যাস ঠিক না থাকলে চুল এর অনেক ক্ষতি হতে পারে।
পাশা পাশি শরীর চর্চা ও করতে হবে।

চুলের যত্নে এগুলো খুব দরকারি।

৬] কন্ডিশনারঃ

কন্ডিশনার চুলের যত্নে ব্যাবহার করা উচিৎ।
কারন এতে থাকে এমিনো ওসিড।
যা চুল মসৃন রাখতে সাহায্য করে।

এই উপায় গুলো ফলো করার পর ও যদি চুল পড়ে, তাহলে ভাল ডাক্তার এর সাথে পরামর্শ করবেন।

আজ এ পযন্ত,
ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জ্ঞান আপনাদের মাঝে তুলে ধরার চেস্টা করি।
পরবর্তী ট্রিক এর জন্য অপেক্ষা করুন, আবারো ভাল কিছু নিয়ে হাজির হবো।
সে পযন্ত ভাল থাকুন,সুস্থ থাকুন।

যে কোনো প্রয়োজনে আমার সাথে ফেসবুকে যোগাযোগ করতে চাইলেঃ- Sk Shipon

ধন্যবাদ

Leave a Reply