আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী না দুর্বল যে সব লক্ষণ গুলো দেখে বুঝবেন।

আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন…..? আশা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি ।আসলে কেউ ভালো না থাকলে amartips তে ভিজিট করেনা ।তাই আপনাকে amartips তে আসার জন্য ধন্যবাদ ।ভালো কিছু জানতে সবাই amartips এর সাথেই থাকুন ।

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী না দুর্বল

মানুষ হচ্ছে সর্বশেষ্ঠ প্রাণী যার বিবেক বুদ্ধি রয়েছে চিন্তা করা সিদ্ধান্ত নেওয়া শক্তি রয়েছে। এতো কিছু থাকার পরেও মানুষের শরীরে বিভিন্ন রোগের জীবানু রয়েছে। মানুষের শরীর প্রতিনিয়ত জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে। যায় শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্হা ভালো তার শরীরে সহজে রোগ জীবাণু আক্রমণ করতে পারছেনা আর যার শরীররে প্রতিরোধ ব্যবস্হা ভালোনা তার শরীরে সহজে জীবাণু আক্রমণ করছে।

প্রতিরোধ ব্যবস্হা আমাদের শরীরে জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রতিরোধ ব্যবস্হা খারাপ হওয়ার কারণে আমাদের বিভিন্ন রকমের রোগ শরীরে বাসা বাধছে। তাই আমাদের জানা দরকার আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্হা কেমন। এটি জানার জন্য আমাদের আজকের আর্টিকেলটি পড়লেই জানতে পারবেন।

আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সাদা রক্তকণিকা, লিম্ফ নোড এবং অ্যান্টিবডি দ্বারা গঠিত এবং এরা আমাদের শরীরকে বাহ্যিক সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।তবে আমাদের শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্হা দূর্বল হয় সেক্ষেত্রে কি করা যায়। কিছু লক্ষণ আছে যেগুলো দেখে আপনি বুঝবেন যে আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা দুর্বল।

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা শব্দটি দেখে আপনার মনে বিভিন্ন চিন্তা মাথার মধ্যে গুরুপাক খাচ্ছে। আসলে বেশি দুশ্চিন্তা করা যাবেনা কোন বিষয়ে অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা ভালো লক্ষণ নয়।এই দুশ্চিন্তা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার উপর প্রভাব ফেলে।দুশ্চিন্তার কারণে আপনার শরীরে শ্বেত রক্ত কণিকার সংখ্যা এবং শরীরে লিম্ফোসাইটগুলি হ্রাস পায় যা সাধারণত সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

ঘন ঘন সংক্রমিত হওয়া

আপনার কানে যদি পাঁচবারেরও বেশি সংক্রমণ হয় ব্যাকটেরিয়াল সাইনোসাইটিস বা দু’বারের বেশি নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত হন তাহলে আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা নিয়ে সন্দেহ আছে। আপনি যদি এই সমস্যা গুলো মোকাবেলা না করতে পারেন তাহলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল এটি মেডিক্যালি প্রমাণিত। নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত হলে সাবধানে থাকবেন।

ঠাণ্ডার সমস্যা

যায়া প্রাপ্তবয়স্করা চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুসারে তারা বছরে ২ থেকে ৩ বার সাধারণ সর্দিতে ভুগতে পারেন। আর যাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্হা দুর্বল তারা সারা বছর ধরে দীর্ঘস্থায়ী কাশি হতে পারে। সাধারণ ভাবে প্রতিরোধ ব্যবস্হা অ্যান্টিবডিগুলো তৈরি করতে কাজ করে।

অবসাদ

আপনি যদি রাতে যথেষ্ট পরিমাণে ঘুম হলেও সারাদিন আপনার ঘুম আসবে যদি আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্হা দুর্বল হয়। এর ফলে আস্তে আস্তে শরীর ক্লান্ত হবে।

আরোগ্য লাভে দেরি হওয়া

আপনার কোথাও কেটে গেলে সেই ক্ষত পূরণ হতে যদি বেশি সময় নেয় তাহলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্হা দুর্বল। আর যদি তারাতাড়ি ক্ষত পূরণ হয়ে যায় তাহলে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্হা ভালো। প্রতিরোধ হলো স্বাস্থ্যকর প্রতিরোধক কোষ, যা ত্বকের ক্ষতি দ্রুত সারিয়ে তোলে।

জয়েন্টে ব্যাথা

আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হলে জয়েন্টে ব্যাথা করবে। কারণ প্রতিরোধ ব্যবস্হা দুর্বল হওয়ার রক্তনালীতে প্রদাহ, ভ্যাসকুলাইটিসের সমস্যায় ভুগতে পারেন।

দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা

আমাদের শরীরে ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা হজমের সাথে সম্পর্কযুক্ত।আর এই জন্য কোষ্ঠ্যকাঠিন্য, অ্যাসিডিটি, গ্যাস, ডায়রিয়া দেখা দিতে পারে চিকিৎসা বিজ্ঞানের মতে।

আশা করি সবাই সবকিছু বুঝতে পেরেছেন। কোথাও সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন অথবা ফেসবুকে জানাতে পারেন ফেসবুকে আমি

Leave a Reply