আখের রস কেন খাবেন? আখের রস খাওয়ার উপকারী ও গুনগুলো জেনে নিন।

আসসালামুআলাইকুম,ও হিন্দু ভাইদের জানাই আদাব। আশা করি সবাই ভাল আছেন। ভাল থাকার কথা। কারন আমারটিপ্সর সাথে থাকলে নিত্যনতুন ট্রিক ও টিপস সম্পর্কে জানা যায়। প্রতিবারের মতো আপনাদের মাঝে আবারো আরেকটি আর্টিক্যাল নিয়ে হাজির হলাম। টাইটেল দেখে হয়তো সবাই বুঝে গেছেন আজিকে কোন বিষয় নিয়ে আর্টিক্যাল লিখতে যাচ্ছি।
আজকে যে বিষয় নিয়ে লিখতে যাচ্ছি সে বিষয় গুলো হলো,আখের রস এর উপকারিতা ও গুনাগুন। আমরা অনেকে জানি না এই আখের রসে ও অনেক গুন রয়েছে। আখের রসকে বলা হয় প্রাকৃতিক এনার্জি ডিংক। আখের রস আমাদের দেহের শুধু ক্লান্তি ই দূর করে না।এটি আমাদের শরীর এর জন্য ও অনেক উপকারী।এতে অনেক গুন রয়েছে। আমরা অনেকে মনে করি এটি অনেক ক্ষতিকর। আসলে পরিমান মতো আখের রস খাওয়া অনেক উপকারী। তবে বেশি পরিমান খাওয়া ঠিক না।
তবে যাদের ডায়াবেটিস এর সমস্যায় ভুগছেন, তারা চিকিৎসক দের সাথে পরামর্শ করে আখের রস খাবেন। তবে আমাদের সবার উচিৎ পরিমান মতো আখের রস খাওয়া। আমরা জানি যে সব জিনিস ই পরিমান এর থেকে বেশি ক্ষতিকর। তাই আখের রস ও আমাদের নির্দিস্ট পরিমান মতো খাওয়া উচিৎ।
কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক, আখের রস খাওয়ার উপকারিতা ও গুনঃ

১) আখের রস পরিমান মতো খেলে ডায়াবেটিস এর জন্য অনেক উপকারী। এতে জি-আই এর পরিমাণ অনেক কম থাকে।যার কারনে যারা ডায়াবেটিস এ আক্রান্ত তারা এই আখের রস খেতে পারেন৷ তবে একটা সাবধানতা অবলম্বন করে খেতে হবে,ডাক্তার এর সাথে পরামর্শ করে খাবেন যারা ডায়াবেটিস এ আক্রান্ত।

২) কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর করে এই আখের রস। কারন এতে রয়েছে,পটাশিয়াম ও ফাইবার ও অনেক পরিমান আছে এই আখের রসে।যার কারনে আখের রস কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর করে ও হজম শক্তি বাড়িয়ে তোলে।

৩)আখের রস আমাদের ত্বকের জন্য খুব ই উপকারী। আখের রসে আছে আলফা হাআইড্রক্সি, যেটা আমাদের ত্বকের সমস্যা ব্রন ও অন্যান্য বয়সের ছাপ দূর করে।

৪) আখের রস ওজন কমাতে সাহায্য করে। আখের রস কিন্তু মিস্টি, কিন্তু তবুও আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে।কারন এই আখের রসে প্রচুর পরিমান ফাইবার থাকে,যা আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে।এছাড়া ও আখের রস কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমিয়ে দেয়।

৫) আখের রস হার্ট ভাল রাখতে প্রচুর ভুমিকা পালন করে। আখের রস হার্ট অ্যাটাক রুখতে ও কার্যকারী।তাই যাদের এ ধরনের সমস্যা আছে তারা আখের রস খেতে পারেন।

৬) গরমকালে সাধারণত ডিহাইড্রেশন সমস্যা অনেকের দেখা দিয়ে থাকে। আখের রস ডিহাইড্রেশন সমস্যা দূর করতে প্রচুর ভুমিকা পালন করে।

৭) একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে আখের রস যারা নিয়মিত ও পরিমাণ মতো খেয়ে থাকে তাদের কাছে একাধিক রোগ ঘেষতে পারে না।আখের রসে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম,ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, জিঙ্ক,পটাশিয়াম, এছাড়া ও আরো অনেক উপাদান। যা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী।

আখের রস আমাদের সবার উচিৎ পরিমান মতো খাওয়া। কারন পরিমানমতো আখের রস খাওয়া অনেক ভাল। কিন্তু পরিমান ছাড়া আখের রস খেলে উপকার থেকে অপকার ই বেশি হতে পারে।

টেকনিক্যাল বিষয়ে যাবতীয় ভিডিও ও সমাধান পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুনঃ

Youtube Channel

আজ এ পযন্ত,
ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জ্ঞান আপনাদের মাঝে তুলে ধরার চেস্টা করি।
পরবর্তী ট্রিক এর জন্য অপেক্ষা করুন, আবারো ভাল কিছু নিয়ে হাজির হবো।
সে পযন্ত ভাল থাকুন,সুস্থ থাকুন।

যে কোনো প্রয়োজনে আমার সাথে ফেসবুকে যোগাযোগ করতে চাইলেঃ- Sk Shipon

ধন্যবাদ

Leave a Reply