পড়াশোনা পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করে বাড়তি উপার্জন

পড়াশোনা পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করে বাড়তি উপাজন

আমাদের অনেকের কাছে ফ্রিল্যান্সিং কথাটি পরিচিত আমরা সবাই কম বেশি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানি।

আমরা অনেকে আছি যারা ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে তেমন একটা জানি না যে কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করা যায়।

আজকে আপনাদের আমি ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো কিভাবে আপনি পড়াশনা পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার করবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

বর্তমান সময়ে তরুনদের কাছে জনপ্রিয় শব্দ ফ্রিল্যান্সিং।

আমাদের অনেক তরুনদের ইচ্ছা ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গড়ার।

ফ্রিল্যান্সিং হলো একটি মুক্ত পেশা যা আপনি চুক্তি ভিত্তিতে আপনার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা ব্যবহার করে কোন ক্লায়েন্টকে সেবা দেওয়াকে ফ্রিল্যান্সিং বলা হয়।

ইন্টারনেট মাধ্যমে কোন কাজ করে আয় করাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে।আরো সহজ ভাবে বলতে মনে করে আপনার এলাকায় গ্রাফিক্স দোকান আছে যারা গ্রাফিক্স কাজ বা Ms Officeও Data Entry কাজ করে থাকে কিন্তু তারা এই কাজগুলো দীর্ঘ সময় ধরে করে থাকে কিন্তু এই কাজ গুলো অনলাইন কম সময়ে কোন ক্লায়েন্টকে করে দেওয়াকে ফ্রিল্যান্সিং বলা হয়।

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার যেভাবে করবেন?

কম বয়েস থাকে শুরু করা ভালো।আপনি পড়াশোনা ও ফ্রিল্যান্সিং দুটি সমান্তারাল রাখতে হবে যাতে আপনার পড়াশনা কোন ক্ষতি না হয়।ফ্রিল্যান্সিং আপনার দক্ষতা ও ধৈর্য থাকতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার করার জন্য আপনাকে প্রথম ইচ্ছা থাকতে হবে কাজটির প্রতি আগ্রহ থাকতে হবে।

আপনাকে আগে ফ্রিল্যান্সিং কাজগুলো ভালোভাবে শিখতে হবে আপনি যখন এই কাজগুলো ভালো ভাবে শিখতে পারবেন তখন আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য ইন্টারনেট প্রয়োজন যাদের কম্পিউটার বা স্মার্টফোন আছে তারা ফ্রিল্যান্সিং কাজগুলো করতে পারবেন।

আপনাকে আগে ফ্রিল্যান্সিং কাজে দক্ষ হতে হবে তারপর আপনি ভালো ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

আপনি ফ্রিল্যান্সিং যে কাজ আপনার ভালো লাগে আপনি সে কাজটি ভালো ভাবে শিখুন যাতে আপনি সে কাজে দক্ষ হয়ে ওঠেন।

ফ্রিল্যান্সিং কী কাজ আছে?

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য প্রথমে আপনার ইন্টারনেট সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে।

আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার পছন্দের কাজ বেছে নিতে পারেন।

কোন বিষয় উপর পারদশী হবে তা আপনার উপর যেমনঃ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও), গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট , কন্টেন্ট রাইটিং , ডিজিটাল মার্কেটিং প্রভৃতি।আপনি যে কাজ শিখুন না কেন আপনাকে সে বিষয়ে পরিপূর্ণ জ্ঞান অর্জন করতে হবে।

যদি seo কাজ শিখেন তাহলে আপনাকে ডিজিটাল মাকেটিং সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে।

আপনি যে বিষয়ে কাজ শিখবেন আপনি সে বিষয়ে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারেন তখন আপনার সমস্যাগুলো গুগলে কিংবা ইউটিউবে সাচ করুন।

পাশাপাশি ভালো মেন্টর বা শিক্ষক খুজে বের করুন যার থাকে আপনি শিখবেন সমস্যা হলে তার থেকে হেল্প নিতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং করে যেভাবে আয় করবেন?

আপনার পড়াশানা পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করলে আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী কাজ করতে পারবেন।

আপনি চাইলে আপনি পড়াশোনার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করে ভালো ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং কাজ ভালোভাবে শিখতে পারেন যেকোন বিষয় উপর অনলাইন বিভিন্ন মাকেটপ্লেস কাজ করতে পারবেন।

ভালো ফ্রিল্যান্সিং কাজ পারেন তাহলে আপনি Upwork,Freelancer,Fiverr এসব মাকেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন।আপনি এসব মাকেটপ্লেস থাকে অন্য ক্লায়েন্ট কাজ করে আপনি ভালো আনিং করতে পারবেন।

Read More

Fiverr কী?যেভবে Fiverr থেকে ভালো ইনকাম করা যায়সিপিএ মার্কেটিং থেকে প্রতি মাসে ৩০০ ডলার ইনকাম করুনঅ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে যেভাবে ভালো আয় করা যায়

শেষ কথাঃ

আপনারা যারা পড়াশনা করেন তাদের পক্ষে ফ্রিল্যান্সিং ছাড়া অন্য কাজ করা বেশি চাপ হয়ে যায় কিন্তু আপনারা যদি ফ্রিল্যান্সিং করেন তাহলে আপনাদের ইচ্ছা অনুযায়ী কাজ করতে পারবেন কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং ছাড়া অন্য কাজ করেন তা ইচ্ছামতো সময়ে করতে পারবেন না।

ফ্রিল্যান্সিং করলে আপনি আপনার ইচ্ছামতো সময়ে কাজটি করতে পারবেন।
আপনারা পড়াশোনা করেন তাই আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং ও পড়াশনা মধ্যে পড়াশনাকে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।

পড়াশোনা পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং আপনি পড়াশনা করে বাকী সময়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিং কাজ করে টাকা উপার্জন করতে পারেন।

Credit -> Projukti71.Com.

Leave a Reply